করোনা আক্রান্ত নার্সের সহকর্মীকে পাড়া ছাড়তে হুমকি, চাঞ্চল্যকর অভিযোগ দিনহাটায়

দিনহাটা: কখনও মোবাইলে, কখনও টিভিতে, কখনও মাইক যোগে, আবার কখনও বা সংবাদ মাধ্যমে বলা হচ্ছে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে সামনে থেকে যারা লড়াই করছেন তাঁদের সহযোগিতা করুন এবং তাঁদের পাশে দাঁড়ান। তখনই খোদ দিনহাটা পুরসভার বাসিন্দা এক স্বাস্থ্যকর্মীকে তাঁর প্রতিবেশীরা পাড়া ছাড়ার হুমকি দেয় বলে অভিযোগ উঠেছে।

ঘটনাকে কেন্দ্র করে শুক্রবার রাতে চাঞ্চল্য ছড়ায় ওই এলাকায়। ওই স্বাস্থ্যকর্মী দিনহাটার মদনমোহনবাড়ির ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা। ১৮ জুন মহকুমা হাসপাতালের এক নার্স করোনা আক্রান্ত হওয়ার পর তাঁর সংস্পর্শে আসা একাধিক নার্স ও চিকিৎসককে হোম কোয়ারান্টিনের থাকার নির্দেশ দেয় হাসপাতাল প্রশাসন।

- Advertisement -

দিনহাটার ৩ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা চন্দনা সরকারও যেহেতু ওই আক্রান্ত নার্সের সহকর্মী তাই তাঁকেও হোম কোয়ারান্টিনে থাকতে বলা হয়। সেইমত তিনি স্বাস্থ্যবিধি মেনে ১৮ জুন রাত থেকেই বাড়িতে কোয়ারান্টিনে রয়েছেন। তাঁর জানান, গতকাল সন্ধ্যায় হঠাৎ কয়েকজন প্রতিবেশী তাঁকে ডাকতে থাকেন এবং বাইরে বেরোতে বলেন। কিন্তু তিনি যেহেতু হোম কোয়ারান্টিনে ছিলেন সেহেতু তিনি বাইরে বেরোননি। এরপর তাঁর স্বামী বাইরে বেরিয়ে প্রতিবেশীদের কাছে জানতে চান কী হয়েছে।

এবিষয়ে তাঁর স্বামী অনুপ কর্মকার জানান, কিছু প্রতিবেশী হঠাৎই তাঁদের বাড়ির সামনে এসে তাঁদেরকে ডাকতে থাকেন এবং তিনি বাইরে বেরোলে তাঁরা পাড়া ছাড়তে বলেন এবং বাজে ভাষায় গালিগালাজও করেন। এমনকি তাঁদের মধ্যে একজন তাঁকে মারতেও উদ্যত হয়। এরপর রাত ৯টা নগাদ তাঁরা দিনহাটা থানায় কয়েকজন প্রতিবেশীর নামে একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন।

এবিষয়ে হাসপাতাল সুপার রণজিৎ মন্ডল বলেন, আমাদের হাসপাতালের নার্স করোনা আক্রান্তের পর থেকে তাঁর সংস্পর্শে যারা যারা এসেছিলেন, তাঁদেরকে হোম কোয়ারান্টিনে থাকার নির্দেশও দেওয়া হয়। সেইমত সকলে হোম কোয়ারান্টিনে রয়েছেন। গতকাল আক্রান্তের সংস্পর্শে আসা এক নার্সের বাড়ির এলাকায় এনিয়ে সমস্যা হয়েছে বলে শুনতে পেয়েছি। এরকম ঘটনা যদি ঘটে থাকে তবে তা সত্যিই নিন্দনীয়।

তবে এ ঘটনায় অভিযুক্ত তপু চৌধুরি বলেন, ওই বাড়ির এক সদস্যই তাঁকে ফোন করে আসতে বলেন। ওই নার্স  সিঁড়ির দরজা বন্ধ করে রাখায় ওই সদস্য ওপরতলা থেকে নীচে নামতে পারছিলেন না। এরপর তিনি আরও কয়েকজন বাসিন্দাদের নিয়ে সেখানেই যান তাঁদের সাহায্য করতে। এর বেশি কিছু ঘটনা ঘটেনি।

ওই ওয়ার্ডের বিদায়ী কাউন্সিলার নমিতা অধিকারী বলেন, গতকাল ওই বাড়ির সদস্যদের সঙ্গে প্রতিবেশীদের একটি বিবাদের খবর পেয়েছি। তবে এখন পরিস্থিতি স্বাভাবিকই আছে। রবিবার ওই বাড়িতে যাব।

শবিবার সকালে দিনহাটা থানার পুলিশ নার্সের বাড়িতে গিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করেন। দিনহাটা থানার আইসি সঞ্জয় দও বলেন, গতকাল এধরনের একটি অভিযোগ আসে। তার ভিত্তিতে আজ তদন্ত করা হয়। প্রাথমিকভাবে সেই তদন্তে তাঁদের পারিবারিক বিবাদের একটা তত্ত্ব উঠে আসছে, যার জেরে প্রতিবেশীদের সঙ্গে একটা বিবাদ হয়। তারপরেও আমরা আরও তদন্ত করছি বিষয়টিকে নিয়ে।