তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের অভিযোগ, চলল বোমাবাজি

200

রায়গঞ্জ: তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের অভিযোগ। বোমাবাজির ঘটনায় মঙ্গলবার উত্তেজনা ছড়াল রায়গঞ্জের গৌরি অঞ্চলের রুদ্রখন্ডে।

স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ওই এলাকারই দুই তৃণমূল নেতা মুন্না সাহেব এবং নুরুল ইসলামের মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিভিন্ন বিষয়ে বিবাদ চলছিল। সোশ্যাল মিডিয়ায় দু’পক্ষের তরফেই কথা কাটাকাটি ও হুঁশিয়ারি দেওয়া হয় বলে অভিযোগ। গতকাল বিবাদ চরমে ওঠে। তবে স্থানীয়রা বিষয়টি মীমাংসা করেন। অভিযোগ, আজ ভোরে মুন্না সাহেবের বাড়িতে একদল দুষ্কৃতী বোমা ছোঁড়ে। তীব্র শব্দে আতঙ্কিত হয়ে পড়েন এলাকাবাসী। মুন্না সাহেব জানান, সিপিএম আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এই কাজ করেছে। রাজনৈতিক উদ্দেশ্য চরিতার্থ করতেই তার বাড়িতে বোমা ছোঁড়া হয় বলে তাঁর অভিযোগ।

- Advertisement -

অন্যদিকে, নুরুল ইসলামের পাল্টা দাবি, তাঁরা তৃণমূল করেন। আগে এক গোষ্ঠীতে ছিলেন। কিন্ত এখন তাঁরা আলাদা গোষ্ঠীর। তার অভিযোগ, তৃণমূলের আলাদা গোষ্ঠী করায় মাঝে মধ্যেই মুন্না ও তার সঙ্গীরা তাঁদের নানাভাবে হুঁশিয়ারি দেয়। গতকাল রাতে মীমাংসা হয়। দলের সহানুভূতি পেতে আজ ভোরে নিজেরাই নিজেদের বাড়িতে বোমা ফাঁটিয়ে আমাদের নামে মিথ্যা অভিযোগ করছে। মিথ্যা মামলায় ফাঁসানোর জন্য বোমাবাজির অভিযোগ তোলা হচ্ছে বলে নুরুল ইসলাম জানান।

এই বিষয়ে রায়গঞ্জ ব্লক তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি মানস ঘোষ জানান, ওই বোমাবাজির সঙ্গে তৃণমূল কোনোভাবেই যুক্ত নয়। আইন আইনের পথে চলবে।

সিপিএমের জেলা সম্পাদক মন্ডলির সদস্য উত্তম পাল বলেন, ‘নরুল ইসলাম বলে সিপিএমের কেউ নেই ওই অঞ্চলে। তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কারনে বোমাবাজি হয়েছে।’ এদিকে আজ শহিদ দিবসের দিনে দলের এই ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। ঘটনার তদন্ত করছে রায়গঞ্জ থানার পুলিশ।