গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে জিআরের চাল, গম আত্মসাতের অভিযোগ

150

সামসী: সাধারণ মানুষের জিআরের চাল, গম আত্মসাতের অভিযোগ উঠল তৃণমূল পরিচালিত পঞ্চায়েত প্রধানের বিরুদ্ধে। মালদার সামসী গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘটনা। উপভোক্তাদের একাংশের রতুয়া-১ ব্লকের বিডিওর কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছে। যদিও অভিযোগ অস্বীকার করেছেন পঞ্চায়েত প্রধান। জানা গিয়েছে, তৃণমূল পরিচালিত সামসী গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান শ্রবণকুমার দাসের বিরুদ্ধে তিন বছর ধরে জিআরের চাল, গম না দেওয়ার অভিযোগ ওঠে। এমনকি মৃত ব্যক্তির নামে জিআরের চাল তুলে আত্মসাতের অভিযোগ ওঠে তাঁর বিরুদ্ধে।

সামসী গ্রাম পঞ্চায়েতের অন্তর্গত মতিগঞ্জ এলাকার এক বিধবা মহিলা কামরুন নেশা বলেন, আমার গ্রাম পঞ্চায়েতে জিআরের খাতায় নাম নথিভুক্ত রয়েছে। বিগত তিন বছর ধরে জিআরের চাল পাচ্ছি না। বছরে ১ কুইন্টাল ৪৪ কেজি চাল পাচ্ছিলাম কিন্তু তৃণমূলের প্রধান হওয়ার পর থেকে নিজের প্রাপ্য থেকে বঞ্চিত রয়েছি।বিষয়টি লিখিতভাবে রতুয়া-১ ব্লকের বিডিও কে জানিয়েছি। আমি চাই প্রশাসন সঠিক তদন্ত করে আমার জিআর চাল পাইয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করে দিক।

- Advertisement -

সামসী গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান শ্রবণ কুমার দাস জানান, এই সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। আমার ভাবমূর্তি খারাপ করার জন্য এই অভিযোগ করছে। বিজেপি ও কংগ্রেস ষড়যন্ত্র করেছে। গ্রামের মানুষকে ভুল বুঝিয়ে অভিযোগ করানো হচ্ছে। কংগ্রেস ও বিজেপির পায়ের তলায় মাটি নেয়। গত বিধানসভায় আমাদের এলাকায় তাদের কেউ ভোট দেয়নি তাই তারা কিছু কিছু মানুষকে দিয়ে আমার বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র করার চেষ্টা চালাচ্ছে।

জেলা বিজেপি সভাপতি গোবিন্দ চন্দ্র মণ্ডল বলেন, চুরি করা তৃণমূলের কালচার। নিজেদের দোষ লুকাতে বিজেপির ঘাড়ে চাপিয়ে দেওয়া হচ্ছে। যেদিন থেকে শ্রবণ কুমার দাস তৃণমূলের প্রধান হয়েছেন সেদিন থেকে চুরি করতে শুরু করেছেন। বিভিন্ন প্রকল্পের টাকা আত্মসাৎ করেছেন। রতুয়া-১ ব্লকের বিডিও সারওয়ার আলি জানান, সামসী গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার উপভোক্তারা আমার কাছে অভিযোগ জানিয়েছেন। অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত করে অভিযুক্ত প্রধানের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।