টাকা নিয়ে বিজেপি কর্মীদের ঘরে ফেরানোর অভিযোগ তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে

187

বর্ধমান, ১৩ জুনঃ ভোটের ফল প্রকাশের পর তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে সন্ত্রাসের অভিযোগ ওঠে। কারণ, হিসেবে বিজেপির দাবি, সেই কারণেই তাঁদের কর্মীদের ঘরছাড়া হতে হয়েছে। এমনকি শনিবার পূর্ব বর্ধমানের খণ্ডঘোষের দলীয় কর্মীদের ঘরে ফিরিয়ে দিয়ে পুলিশকে উদ্দেশ্য করে, হুঁশিয়ারিও দেন বিজেপি নেত্রী তথা আইনজীবী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়াল। এরইমধ্যে বিজেপির আনা অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণ করতে জেলার ভাতার বিধানসভার বিধায়ক মানগোবিন্দ অধিকারী একের পর এক ঘরছাড়াদের ঘরে ফিরিয়ে চলেছেন।

রবিবারও তিনি ঘরছাড়া থাকা ভাতারের ১৫০ জন বিজেপি কর্মী সমর্থককে ঘরে ফেরালেন। ঘরে ফেরা বিজেপি কর্মীরা তৃণমূল বিধায়ক মানগোবিন্দ অধিকারীর প্রতি কৃতজ্ঞতা জানান। যদিও, বিজেপির জেলা নেতৃত্ব এদিন অভিযোগ তোলেন, টাকা নিয়ে তৃণমূলের নেতারা তবেই বিজেপি কর্মীদের ঘরে ফিরতে দিচ্ছেন।

- Advertisement -

বিধানসভা ভোটের ফল প্রকাশের পর রাজ্যের বিভিন্ন জায়গার পাশাপাশি পূর্ব বর্ধমানের ভাতার সহ অনেক ব্লকের বিজেপি কর্মীরা আতঙ্কে বাড়ি ছাড়েন। তা নিয়ে সোচ্চার হন জেলার বিজেপি নেতৃত্ব। তাঁরা ঘরছাড়াদের ঘরে ফেরানোর ব্যবস্থা করা নিয়ে পুলিশ ও প্রশাসনের দ্বারস্থ হতে থাকেন। সপ্তাহ তিনেক আগে বিধায়ক মানগোবিন্দ অধিকারী পুলিশ ও প্রশাসনের আধিকারিকদের কথা দেন, তৃণমূল কংগ্রেসের জন্য কেউ যদি বাড়িছাড়া থাকেন, তাঁদেরকে তিনি দায়িত্ব নিয়ে বাড়ি ফেরাবেন।

এরপরই বিধায়ক মানগোবিন্দ বাবু ঘরছাড়াদের বিষয়ে খোঁজ খবর নেওয়া শুরু করেন। তিনি জানতে পারেন, ভাতারের বনপাশ গ্রাম পঞ্চায়েতের বেশ কয়েকটা গ্রামের প্রায় ১৫০ জন বিজেপি কর্মী ও সমর্থক ঘরছাড়া হয়ে রয়েছেন।তারপরই তিনি ঘরছাড়াদের পরিবারের লোকজনদের সঙ্গে কথা বলেন। পাশাপাশি, ঘরছাড়াদের সঙ্গেও তিনি ফোনে যোগাযোগ করেন। তাঁদের নির্ভয়ে ঘরে ফেরার অভয় দেন। তৃণমূল বিধায়কের কথায় আশ্বস্ত হয়ে, এদিন মোহনপুর, হরিবাটি চাঁদাই, কামারপাড়া প্রভৃতি এলাকার ১৫০ জন ঘরছাড়া বিজেপি কর্মী ঘরে ফিরেছেন।

ঘরে ফিরে বিজেপি কর্মী কুণাল ঘোষ, রমেশ দাস প্রমুখ বলেন, ভোটের ফল প্রকাশের পর তৃণমূলের কেউ তাঁদের আক্রমন করেননি। তবে, ভয়ে আতঙ্কে তাঁরা গ্রাম ছেড়ে পালিয়ে গিয়েছিলেন। শনিবার বিধায়ক মানগোবিন্দ বাবু ও অন্য তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব ফোন করে তাঁদের নির্ভয়ে বাড়ি ফিরে আসতে বলেন। এদিন বিধায়ক ও পুলিশের উপস্থিতিতে তাঁরা বাড়ি ফেরেন।

বিধায়ক মানগোবিন্দ অধিকারী বলেন, রাজনৈতিক কারণে কেউ ঘরছাড়া থাকুক, এটা কোনও ভাবেই কাম্য হতে পারে না। ঘরছাড়া থাকা এলাকার মানুষজনকে ঘরে ফেরানোর বিষয়ে প্রশাসন তাঁর কাছে আর্জি জানিয়েছিল। এরপর তিনি ও দলের অন্য নেতৃত্ব উদ্যোগ নিয়ে বনপাস গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকায় প্রায় ১৫০ জন ঘরছাড়াদের এদিন ঘরে ফেরালেন।

যদিও, এদিনও বিজেপি নেতারা তৃণমূলের বিরুদ্ধে অভিযোগের অঙুল তোলা জারি রাখেন। বিজেপির জেলা সহসভাপতি প্রবাল রায় বলেন, বিজেপি কর্মীরা এক মাস ধরে ঘরছাড়া হয়ে ছিলেন।বাড়িতে ফিরলেও, তাঁদের মারধর করা হচ্ছে। কোথাও কোথাও আবার ঘরে ফেরাদের কাছ থেকে মোটা টাকা জরিমানা আদায় করা হচ্ছে। টাকা নিয়ে তবেই তৃণমূল কংগ্রেসের নেতারা তাঁদের কর্মীদের বাড়িতে ঢুকতে দিচ্ছেন বলে তিনি অভিযোগ করেছেন।