রোহিতদের বিরুদ্ধে জৈব সুরক্ষা বলয় ভাঙার অভিযোগ

মেলবোর্ন, ২ জানুয়ারিঃ বর্ষবরণের ফুরফুরে মেজাজের ছবিটা বদলে গেল বিতর্কে। জৈব সুরক্ষা বলয় ভাঙার গুরুতর অভিযোগ রোহিত শর্মা সহ পাঁচ ভারতীয ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে। শুক্রবার মেলবোর্নের এক রেস্তোঁরায় ঋষভ পন্থ, শুভমান গিল, পৃথ্বী শ, নভদীপ সাইনিকে সঙ্গে নিয়ে ডিনার সারতে গিয়েছিলেন রোহিত। আর তা করতে গিয়ে বায়ো-বাবল প্রোটোকল ভাঙেন বলে অভিযোগ উঠেছে।

এক ভারতীয় সমর্থকের ভিডিও পোস্টের মাধ্যমেই বিষয়টি সামনে আনে সিডনি মর্নিং হেরাল্ড। ভিডিওয় রেস্তোরাঁয় একটি টেবিলে পাঁচ ভারতীয় ক্রিকেটারকে একসঙ্গে দেখা গিয়েছে। অন্যান্য টেবিলে হাজির ছিলেন বাইরের কয়েকজনও। তাদেরই একজন নভলদীপ সিং রোহিতদের ভিডিও তুলে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেন। বিলের ছবি পোস্ট করে নভলদীপ দাবি করেন, রোহিতদের খাবারের ৬,৬৮৩ টাকা তিনি মেটান। রেস্তোঁরা ছাড়ার সময ঋষভ পন্থ তাকে জড়িয়ে ধরেন। অবশ্য পরে জানান, ঋষভ তাঁকে আলিঙ্গন করেননি। দূরত্ব বজায় রেখেই তাঁরা কথা বলেছেন।

- Advertisement -

যদিও বিতর্ক তৈরির জন্য ভিডিয়োটিই যথেষ্ট ছিল। মেলবোর্নে ক্রিকেটার, সাপোর্ট স্টাফদের হোটেলের বাইরে গিয়ে ডিনার করার অনুমতি রয়েছে। কিন্তু তা করতে হবে আউটডোরে, খোলা জাযগায়, সম্পূর্ণভাবে কোভিদ প্রোটোকল মেনে। যদিও অজি সংবাদপত্রের দাবি, রোহিতরা তা লঙ্ঘন করেছেন। রেস্তোঁরার হলঘরে ডিনার সেরেছেন তাঁরা। ফলে পরিস্থিতি আরও জটিল হওয়ার আশঙ্কা উড়িযে দেওয়া যাচ্ছে না। যা ভারতীয় দল, বোর্ডের পাশাপাশি সিরিজের সংগঠক ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়াকে সমস্যায় ফেলে দিল বলাই চলে।

একদিকে, বায়ো-বাবল ভাঙার অভিযোগ। অপরদিকে বাকি ক্রিকেটারদের সুরক্ষা সুনিশ্চিত করা। দুদিক মাথায় রেখে তৎক্ষণাত্ পদক্ষেপ করা হয়েছে অস্ট্রেলিয়ার ক্রিকেট বোর্ডের তরফে। সতর্কতামূলক ব্যবস্থা হিসেবে রোহিত শর্মা সহ পাঁচ ভারতীয় ক্রিকেটারকে আইসোলেশনে রাখা হচ্ছে। আইসোলেশনে থাকাকালীন রোহিতরা অনুশীলন করতে পারবেন। কিন্তু দলের অনুশীলনে যোগ দিতে পারবেন না। পাশাপাশি সঠিক কী ঘটেছিল, তা খতিযে দেখতে তদন্তও শুরু করেছে দুই দেশের বোর্ড।

ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়ার তরফে এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, বিসিসিআই ও ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া পুরো ঘটনার তদন্ত করে দেখছে। আদৌ জৈব সুরক্ষা বলয় ভাঙা হহয়েছে কি না তা খতিয়ে দেখা হবে। অন্তর্বর্তীকালীন ব্যবস্থা হিসেবে অস্ট্রেলিয়া ও ভারতীয় মেডিকেল টিমের পরামর্শমাফিক পাঁচ ক্রিকেটারকে আইসোলেশনে রাখা হয়েছে। বাকি দলের থেকে আলাদা থাকবেন তাঁরা। যাতায়াত ও ট্রেনিংয়ের সময়ে এই দূরত্ববিধি বজায় থাকবে।

বাযো-বাবল বিতর্ক নিশ্চিতভাবে চাপে ফেলে দিচ্ছে ভারতীয দলকে। নতুন বছরে এদিনই অনুশীলনে নেমেছিল রাহানে ব্রিগেড। কিন্তু সিডনি টেস্টের আগে রোহিতদের নিয়ে তৈরি বিতর্ক, আইসোলেশন রবি শাস্ত্রীদের কপালের ভাঁজ বাড়াচ্ছে। আইপিএল থেকেই ভারতীয় ক্রিকেটাররা জৈব সুরক্ষা বলয়ে। চোটের জন্য দেরীতে দলের সঙ্গে যোগ দেওয়া রোহিতকে ১৪ দিনের কোযারান্টিনে কাটাতে হয়েছে। ৩০ ডিসেম্বর দলের সঙ্গে যোগ দেন। কয়েকদিন কাটতে না কাটতে ফের আইসোলেশন।

বিগব্যাশে বায়ো বাবল ভাঙার দায়ে ইতিমধ্যেই অজি বোর্ডের কড়া পদক্ষেপ করেছে।  কঠোর শাস্তির মুখে পড়েন ব্রিসবেন হিটসের ক্রিস লিন ও ড্যান লরেন্স। একই ভুল করে ইংল্যান্ডের ফাস্টবোলার জোফ্রা আর্চারকে ১টি টেস্ট নির্বাসনে কাটাতে হয। তদন্তের পর রোহিতদের ভাগ্যে কী অপেক্ষা করছে বলা মুশকিল। কারণ, কোভিড প্রোটোকল ভাঙলে নিজেদের পাশাপাশি বাকিদের সুরক্ষাকেও অনিশ্চয়তার মধ্যে ঠেলে দেওয়া। এমনিতেই অস্ট্রেলিয়ার কোভিড প্রোটোকল অত্যন্ত কড়া। সিডনিতে তা আরও বাড়বে। এমন পরিস্থিতিতে রোহিতদের নিয়ে এই বিতর্কের জল কতদূর গড়ায় বলা মুশকিল।

প্রাথমিকভাবে অবশ্য ভারতীয ক্রিকেট বোর্ডের তরফে অভিযোগ উড়িয়ে দেওয়া হয়। অস্ট্রেলিয়া সংবাদমাধ্যমের উদ্দেশ্যপ্রণোদিত খবর পরিবেশন বলে পালটা অভিযোগ করেন বোর্ডের এক আধিকারিক। দাবি করেন, কোভিড প্রোটোকল সম্পর্কে সবাই ওয়াকিবহাল। কোনওরকম বিধিনিষেধ লঙ্ঘন করা হযনি। কেউ জৈব সুরক্ষা বলয় ভাঙেনি। মেলবোর্নে অস্ট্রেলিয়ার হারের পর ভারতীয় দলের ওপর চাপ তৈরি করতেই এটা করছে অজি সংবাদমাধ্যমের একাংশ।