ফের কাঠগড়ায় কাটোয়া হাসপাতাল, সহকারী দুই সুপারের বিরুদ্ধে প্রতারণা-শ্লীলতাহানির অভিযোগ

347

বর্ধমান: চাকরি পাইয়ে দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগ উঠল পূর্ব বর্ধমানের কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালের ডেপুটি সুপর ও অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপারের বিরুদ্ধে। প্রতারণার সবিস্তার উল্লেখ করে প্রতারিত মহিলা জেলাশাসক ও জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিকের দপ্তরে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন। মহিলার অভিযোগ শুধু প্রতারণাই নয়, তাঁর শ্লীলতাহানিও করা হয়েছে। ইতিপূর্বে কাটোয়া হাসপাতালের ডেপুটি সুপারের সঙ্গে এক মহিলার আপত্তিকর ভিডিও ভাইরাল হয়েছিল। এই ঘটনার রেশ কাটতে না কাটতে ফের ডেপুটি ও অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপারের বিরুদ্ধে চাকরি দেওয়ার নামে প্রতারণার অভিযোগ ওঠায় শোরগোল পড়ে গিয়েছে কাটোয়ার প্রশাসনিক মহলে।

প্রশাসনিক কর্তাদের লিখিত অভিযোগে মহিলা জানিয়েছেন, হাসপাতালে স্থায়ী চাকরি করে দেওয়ার কথা বলে কাটোয়া মহকুমা হাসপাতালের ডেপুটি ও অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপার তাঁর কাছে থেকে ২০ হাজার টাকা নেন। তারপর তিনি হাসপাতালের শিশু বিভাগের সুইপার পদে কাজে যোগ দেন। কিছুদিন পর তিনি জানতে পারেন অস্থায়ী ভাবে তাঁকে সুইপার পদে কাজে লাগানো হয়েছে। এই কাজে প্রতি মাসে বেতন পাবেন এমন কোন নিশ্চয়তাও নেই। তাই বাধ্য হয়ে তিনি কাজটি ছেড়ে দেন। মহিলার অভিযোগ “কাজ ছাড়ার পর তিনি ডেপুটি সুপার ও অ্যাসিস্ট্যান্ট সুপারের কাছে তাঁর দেওয়া ২০ হাজার টাকা ফেরত চাইতে যান। কিন্তু, টাকা ফেরত না দিয়ে উল্টে তাঁর শ্লীলতাহানি করেন ও পরিবারের ক্ষতি করে দেওয়ার হুমকি দেন। মহিলার বক্তব্য, এই ঘটনার বিহিত চেয়ে তিনি ডেপুটি ও অ্যাস্টিস্টেন্ট সুপারের বিরুদ্ধে জেলা স্বাস্থ্য দপ্তর ও জেলা শাসকের কাছে লিখিত অভিযোগ জানিয়েছেন।

- Advertisement -

যদিও মহিলার অভিযোগের বিষয়ে ডেপুটি সুপার অনন্য ধর বলেন, “কাউকে চাকরি দেওয়ার কোন ক্ষমতা আমার নেই। তাই কউকে কোনদিন কোথাও আমি চাকরি করেদিতে পারিনি। আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ তোলা হচ্ছে। অনন্য ধরের দাবি, কোন অসৎ উদ্দেশ্য নিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে মিথ্যা অভিযোগ আনা হয়েছে।” অন্যদিকে অ্যাস্টিস্টেন্ট সুপার সুপ্রিয় দত্তর স্পষ্ট জবাব, “চক্রান্ত করেই তাঁর বিরুদ্ধে এমন অভিযোগ তোলা হচ্ছে।” তবে জেলা স্বাস্থ্য আধিকারিক প্রণব রায় বলেন, ‘অভিযোগের বিষয়টি তদন্ত করে দেখা হচ্ছে’।