বিজেপি পরিচালিত পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ

0
473
- Advertisement -

রায়গঞ্জ: বিজেপি পরিচালিত পঞ্চায়েতের বিরুদ্ধে একশো দিনের কাজ সহ বিভিন্ন সরকারি প্রকল্পের অর্থ নয়ছয়ের অভিযোগ আনল বাম-কংগ্রেস। বৃহস্পতিবার উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জের শেরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ঘটনা। এদিন বাম-কংগ্রেসের তরফে দুর্নীতি মুক্তি সহ একাধিক দাবিতে রায়গঞ্জের জয়েন্ট বিডিও-র কাছে স্মারকলিপি জমা দেওয়া হয়। কারণ, ওই গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান দিপালী বর্মণ সহ কোনও আধিকারিক না আসায় জয়েন্ট বিডিও-র দ্বারস্থ হন অভিযোগকারীরা।

স্থানীয় বাম-কংগ্রেসের অভিযোগ, বিজেপি পরিচালিত পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষ অতিরিক্ত মাত্রায় চৌকিদারি ট্যাক্স ধার্য্য, একশো দিনের কাজের অর্থ নয়ছয়, জলকর ও সম্পত্তি কর পঞ্চায়েতের ফান্ডে জমা না করা, এক ফান্ডের টাকা অন্য ফান্ডে ট্রান্সফার সহ একাধিক প্রকল্পে নয়ছয় করছে। স্থানীয় প্রাক্তন গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান তথা সিপিএম নেতা অমর চাঁদ বিশ্বাস বলেন, একশো দিনের কাজের টাকা ভাগাভাগি করে নিচ্ছেন বিজেপি নেতা-নেত্রীরা। আমাদের কাছে প্রতিটি অভিযোগের উপযুক্ত প্রমাণ রয়েছে। আজ গ্রামবাসীরা প্রধানের কাছে বিভিন্ন অভিযোগের প্রমাণ তুলে ধরতে চেয়েছিলেন, কিন্ত তিনি পঞ্চায়েতে আসেন নি। এই দুর্নীতির বিরুদ্ধে বৃহত্তর আন্দোলনে নামা হবে।

শেরপুর অঞ্চল কংগ্রেস সভাপতি বাপি চৌধুরী বলেন, বাম-কংগ্রেস যৌথভাবে গণডেপুটেশনে হাজির হয়েছিলাম। বিজেপি পরিচালিত গ্রাম পঞ্চায়েত দুর্নীতিতে বিন্দোল গ্রাম পঞ্চায়েত থেকে এগিয়ে গিয়েছে। পঞ্চায়েতের প্রতিটি প্রকল্পে ব্যাপক দুর্নীতি চলছে বলে প্রধান সহ আধিকারিকেরা আজ কেউ পঞ্চায়েতে আসেন নি। কিন্ত আমাদের আন্দোলন চলবে। অঞ্চলের মানুষ প্রতিটি হিসেব বুঝে নেবে।

বিরোধীদের অভিযোগের বিষয়ে গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান দিপালী বর্মন কিছু না বললেও তাঁর স্বামী ও পঞ্চায়েতের সেক্রেটারি করোনা পজিটিভ হওয়ায় হোম আইসোলেশনে আছেন।

- Advertisement -