স্ত্রীকে খুনের অভিযোগ শিক্ষকের বিরুদ্ধে

492

হলদিবাড়ি: বিবাহ বহির্ভূত সম্পর্কে মান্যতা দিতে ঠান্ডা মাথায় স্ত্রীকে হত্যা করার অভিযোগ উঠল এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে। বৃহস্পতিবার এই ঘটনাটিকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়াল হলদিবাড়ি শহরের ১১ নম্বর ওয়ার্ডের পূর্বপাড়া এলাকায়। এদিন বিকেলে ওই বধূর মৃত্যুর খবর পেয়ে হলদিবাড়ি ছুটে আসেন মৃতার পরিবারের সদস্যরা। এই বিষয়ে এদিন রাতে হলদিবাড়ি থানার একটি লিখিত অভিযোগও দায়ের করা হয়। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।

পুলিশ সূত্রে খবর, শুক্রবার দেহটি ময়নাতদন্তের পর পরিবারের সদস্যদের হাতে তুলে দেওয়া হবে। শিলিগুড়ির সারদাপল্লীর বাসিন্দা মৃতার দিদি মুনমুন সরকারের অভিযোগ, তার বোন রুম্পা মন্ডল দাসের সঙ্গে নয় বছর আগে উত্তর দিনাজপুর জেলার বালুরঘাট থানার অন্তর্গত পতিরাম এলাকার বাসিন্দা সম্পদ মন্ডলের সঙ্গে প্রণয়ের বিয়ে হয়। সম্পদবাবু পেশায় দেওয়ানগঞ্জ বাংলা মাধ্যম হাই স্কুলের বাংলা বিষয়ের শিক্ষক। কর্মসূত্রে তারা হলদিবাড়িতে থাকতেন। তাঁদের ৫ বছরের একটি কন্যাসন্তানও রয়েছে।

- Advertisement -

অভিযোগ, বিয়ের পর থেকেই বোনের ওপর শারীরিক ও মানসিক নির্যাতন চালাত সম্পদ। সেই সঙ্গে বোনের সঙ্গে প্রতিবেশী, আত্মীয়স্বজন এমনকি সহকর্মীদের নিয়ে সন্দেহ করত। চলত নির্যাতন। নিজের সন্তানকেও অন্যের সন্তান বলে দাবি করে অত্যাচারের মাত্রা দ্বিগুন হত। তাছাড়াও গত ছ’মাস আগে বোন পুনরায় সন্তান সম্ভবা হয়। কিন্তু তাঁর ইচ্ছার বিরুদ্ধে সেটি নষ্ট করে দেওয়া হয় বলেও অভিযোগ করেন তিনি। অসুস্থ থাকলেও তাঁর চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হতোনা। বৃহস্পতিবার দুপুরে অতিরিক্ত অসুস্থ বোধ করলে প্রথমে তাঁকে হলদিবাড়ি গ্রামীণ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। অবস্থার অবনতি হলে জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে স্থানান্তর করা হয়। সেখানে নিয়ে যাওয়ার পথেই তাঁর মৃত্যু হয়।

যদিও শ্বশুরবাড়ির লোকজনের সমস্ত অভিযোগ অস্বীকার করেন শিক্ষক সম্পদ মন্ডল। তিনি বলেন, আমার বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা ও ভিত্তিহীন। প্রেম করে বিয়ে করেছিলাম। প্রথম থেকেই স্ত্রীর পরিবারের সদস্যরা এই বিয়ের বিরুদ্ধে ছিল। সুযোগ বুঝে আমাকে ফাঁসানো হচ্ছে। জলপাইগুড়ি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালের সামনে আমার শ্বশুরবাড়ির লোকজন আমাকে মারধর করেছ। এই বিষয়ে থানায় লিখিত অভিযোগ করব। হলদিবাড়ি থানার আইসি দেবাশীষ বসু বলেন, ‘অভিযোগ পেয়েছি। পুলিশ ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে।’