নম্বরের প্রলোভন দেখিয়ে ছাত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক, অভিযুক্ত অধ্যাপক

238

রায়গঞ্জ: পরীক্ষায় বেশি নম্বর পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে ছাত্রীর সঙ্গে শারীরিক সম্পর্কের অভিযোগ উঠল রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের এক বিবাহিত অধ্যাপকের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হতেই নিন্দার ঝড় উঠেছে রায়গঞ্জে। ওই ছাত্রী অভিযুক্ত অধ্যাপকের কুকীর্তির বিবরণ দিয়ে রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে ডাকযোগে চিঠি পাঠিয়েছেন। বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ চিঠির কথা স্বীকার করেছে। ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত করে অভিযুক্তের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি উঠেছে।

ছাত্রীর অভিযোগ, ওই অধ্যাপক তাঁকে মেস ঠিক করে দিয়েছিলেন এবং প্রতিমাসে ভাড়া তিনিই মেটাতেন। তিনি নিয়মিত মেসে আসতেন। অধ্যাপকের সঙ্গে দুটি শিক্ষামূলক ভ্রমণে গিয়েছিলেন ওই ছাত্রী। লকডাউনের আগে বোলপুরে অধ্যাপকের বাড়িতেও যান। ৩ বছরের বেশি সময় ধরে তাঁকে শোষণ করেছেন ওই অধ্যাপক। তাঁকে হুমকিও দিতেন।

- Advertisement -

স্নাতকোত্তরের ওই ছাত্রীর আরও অভিযোগ, ওই অধ্যাপক তাঁদের বিভিন্ন অন্তরঙ্গ মুহূর্তের ছবি মোবাইলে রেকর্ড করে তাঁকে ব্ল্যাকমেল করতেন। ছাত্রীটি বলেন, ’উনি আমার ঘরে এলেই মোবাইল নিয়ে নিতেন। চ্যাট ডিলিট করে দিতেন। স্নাতকোত্তরে বেশি নম্বর পাইয়ে দেওয়ার প্রলোভন দেখিয়ে এবং পিএইচডি করিয়ে দেওয়ার মিথ্যা প্রতিশ্রুতি দিয়ে শারীরিক সম্পর্ক গড়ে তুলেছেন। আমি ছাড়াও আরও অনেকের সঙ্গে শারীরিক সম্পর্ক আছে। ওই অধ্যাপক আমার মতো আরও অনেক মেয়ের জীবন নষ্ট করেছেন। উনি বিশ্ববিদ্যালয়ের কলঙ্ক।‘ তবে ওই ছাত্রী বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষকে লেখা চিঠিতে নিজের পরিচয় জানাননি।

এদিকে, একজন অধ্যাপকের বিরুদ্ধে এমন চাঞ্চল্যকর অভিযোগের নিন্দা করেছেন রায়গঞ্জের সর্বস্তরের মানুষ। বঙ্গরত্ন শিক্ষাবিদ অমিত সরকার বলেন, ’ছাত্র-ছাত্রীদের আমরা নিজের সন্তানের মতো দেখি। যাঁরা এই ধরণের কাজে লিপ্ত, তাঁরা শিক্ষকতা করার যোগ্য নন। অভিযুক্ত অধ্যাপকের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক ব্যবস্থা উচিত বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষের।‘

রায়গঞ্জ পুরসভার চেয়ারম্যান সন্দীপ বিশ্বাস বলেন, ‘ঘটনার তীব্র নিন্দা করছি। তবে এজন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজস্ব আইন আছে। ডিসিপ্লিনারি কমিটি আছে। সেই আইনের বলে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ তদন্ত করবে এবং অভিযোগ প্রমাণিত হলে উপযুক্ত ব্যবস্থা নেবে।‘

রায়গঞ্জ বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার দুর্লভ সরকার বলেন, ‘মঙ্গলবার আমার কাছে একটি অভিযোগপত্র এসেছে। উপাচার্যের সঙ্গে এদিন মিটিং আছে। তাঁকে বিষয়টি জানাব।‘