তৃণমূল নেতাদের বিরুদ্ধে পার্টি অফিস বিক্রির অভিযোগ

678

মহম্মদ হাসিম, খড়িবাড়ি : তৃণমূল কংগ্রেসের নেতাদের বিরুদ্ধেই তৃণমূলের পার্টি অফিস বিক্রির অভিযোগ উঠল খড়িবাড়ি ব্লকের রানিগঞ্জ পানিশালি গ্রাম পঞ্চায়েতের বাতাসি বাজার এলাকায়। দলের পার্টি অফিস বিক্রি হয়ে যাওয়ার ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। অভিযোগ, রানিগঞ্জ পানিশালি গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রধান ভবতোষ মণ্ডল, মুকুল সরকার ও আরও এক নেতা আট লাখ টাকার বিনিময়ে পার্টি অফিস বিক্রি করেছেন। স্থানীয় তৃণমূল কংগ্রেস কর্মীদের দাবি, বাতাসি বাজার এলাকায় সতীশ চন্দ্র চা বাগানের পাশে ৩১ নম্বর জাতীয় সড়কের ধারে ৮৫ ফুট জায়গায় তৃণমূল কংগ্রেসের একটি পার্টি অফিস ছিল। কিন্তু লকডাউনের মধ্যে আচমকাই জানা যাচ্ছে, তৃণমূল কংগ্রেসের পার্টি অফিসের জায়গা বিক্রি করে সেখানে বেশ কয়েকটি দোকান গজিয়ে উঠেছে। রানিগঞ্জ পানিশালি গ্রাম পঞ্চায়েতের অশোক মজুমদার নামক এক ঠিকাদার মোটা টাকার বিনিময়ে জায়গা কিনেছেন বলে অভিযোগ। বিষয়টি নিয়ে তিন নেতার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে সরব হয়েছেন স্থানীয় নেতারা।

খড়িবাড়ি ব্লকের রানিগঞ্জ পানিশালি গ্রাম পঞ্চায়েতের তৃণমূল কংগ্রেসের অঞ্চল সভাপতি দ্বিগেন্দ্রনাথ সিনহা জানান, দীর্ঘদিন ধরেই বাতাসি বাজার এলাকায় ওই জায়গাটি তৃণমূল কংগ্রেসের পার্টি অফিসের জন্য রাখা হয়েছিল। আচমকা তিন নেতা কাউকে কিছু না জানিয়ে পার্টি অফিসের জায়গা বিক্রি করে দোকানঘর বানাতে দিয়েছেন। ইতিমধ্যে লিখিত আকারে বিষয়টি তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা নেতৃত্বকে জানানো হয়েছে। ওই ঠিকাদার অশোক মজুমদার জানান, তৃণমূলের সকল নেতার সঙ্গে আলোচনা করে জায়গাটি আমি কিনেছি। তাই এখানে অভিযোগ করার কোনও বিষয় নেই। স্থানীয় পঞ্চায়েত সদস্য তথা রানিগঞ্জ পানিশালি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রাক্তন প্রধান তৃণমূল কংগ্রেসের জগন্নাথ রায় বলেন, আমি প্রধান থাকার সময় পার্টি অফিস করার জন্য বাগানের এবং পূর্ত দপ্তরের মিলিয়ে মোট ৮৫ ফুট জায়গা দখল করা হয়েছিল। কিন্তু আচমকা অনাস্থা প্রস্তাব নিয়ে আসায় আমি প্রধান পদ থেকে ইস্তফা দিই। বর্তমান তৃণমূল কংগ্রেসের প্রধান ভবতোষ মণ্ডল দলীয় নেতৃত্বকে অন্ধকারে রেখে জায়গা বিক্রি করে দিয়েছেন। যা আমরা লিখিত আকারে জেলা নেতৃত্বকে জানিয়েছি। রানিগঞ্জ পানিশালি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান ভবতোষ মণ্ডলকে এই বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি কোনও মন্তব্য না করেই ফোন কেটে দেন। খড়িবাড়ি ব্লকের তৃণমূল কংগ্রেসের প্রাক্তন যুব সভাপতি মুকুল সরকার জানান, পার্টি অফিসের জায়গা বিক্রি করা হয়নি। দলের সকল কর্মীদের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী রেজোলিউশন করে উক্ত জায়গায় পার্টি অফিসের জন্য পাকা ঘর তৈরি করা হচ্ছে মাত্র। এজন্য আমাদের কর্মীদের ডোনেশনের বদলে জায়গাটি দেওয়া হয়েছে মাত্র। তৃণমূল কংগ্রেসের দার্জিলিং জেলার সভাপতি রঞ্জন সরকার জানান, কোনও পার্টি অফিস বিক্রি করতে দেওয়া যাবে না। বিষয়টি আমার জানা নেই। তবে যাঁরা এমন কাজ করেছেন তাঁদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

- Advertisement -