পুজোর আগে বাংলায় আসবেন অমিত শা

বিশেষ সংবাদদাতা, নয়াদিল্লি : নজরে বাংলা। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় জেলা সফর শুরু করতেই জোর সাংগঠনিক প্রস্তুতি শুরু করে দিল বিজেপি। বড় রকমের কিছু না ঘটলে পুজোর আগেই কলকাতায় আসবেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শা। আসতে পারেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জগৎপ্রকাশ নাড্ডাও।

বৃহস্পতিবার দিল্লিতে রাজ্য বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্বের সঙ্গে বৈঠকে রাজ্যে করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও আন্দোলন শুরু করার নির্দেশ দিলেন সর্বভারতীয় নেতারা। ওই কর্মসূচি অনুয়াযী আগামী ৫ অক্টোবর রাজ্যের সব ব্লকে বিক্ষোভ সমাবেশের আযোজন করবে বিজেপি। আমপানে ত্রাণ নিয়ে দুর্নীতির অভিযোগের প্রতিবাদে এই কর্মসূচি বলে রাজ্য বিজেপির সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন। এছাড়া ৮ অক্টোবর হবে নবান্ন অভিযান। রাজ্যে বাড়তে থাকা রাজনৈতিক হিংসা, শাসক দলের অত্যাচারের অভিযোগের প্রতিবাদ জানাতেই এই কর্মসূচি। যুব মোর্চার রাজ্য সভাপতি সৌমিত্র খাঁ আগেই ওইদিন নবান্ন অভিযানের ডাক দিয়েছিলেন। এখন দলগত ভাবে ওই কর্মসূচি সফল করার নির্দেশ দিলেন অমিত শা ও নাড্ডা। বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ বলেন, রাজ্যে বেড়ে চলা নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড, সন্ত্রাসবাদীদের গ্রেপ্তারি ইত্যাদি জানানো হয়েছে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীকে। তিনি যথাযথ পদক্ষেপ করবেন বলে আশ্বস্ত করেছেন। পুজোর আগেই কলকাতায় এসে দলীয় বৈঠক করবেন অমিত শা। তবে ঠিক কবে আসবেন তা এখনও চূড়ান্ত হয়নি।

- Advertisement -

যুব মোর্চার নবান্ন অভিযানকে কেন্দ্র করে দলের ঐক্যবদ্ধ চেহারা দেখানোর মরিয়া প্রয়াস চলছে। কিন্তু সদ্য সর্বভারতীয় সম্পাদক পদ থেকে অপসারিত রাহুল সিনহাকে নিয়ে দলের অস্বস্তি কিছুতেই কাটছে না। দিল্লিতে এদিনের বৈঠকে তিনি উপস্থিত হয়েছিলেন বটে। কিন্তু বিজেপি সূত্রে খবর, বৈঠক শেষের মুখে ক্ষোভপ্রকাশ করে চলে যান রাহুল সিনহা। কেন তিনি চলে গেলেন প্রশ্ন করা হলে দিলীপ বলেন, উনি দলের প্রবীণ নেতা। বহু নির্বাচনের সাক্ষী। সেই অভিজ্ঞতাকে কাজে লাগিয়ে প্রচারে নামবে বিজেপি। রাহুলের বৈঠক ছেড়ে বেরিয়ে যাওয়া নিয়ে অবশ্য নীরব দিলীপ। এদিনের বৈঠকে অমিত শা ও জেপি নাড্ডা ছাড়াও সর্বভারতীয় নেতত্বের পক্ষে উপস্থিত ছিলেন অরবিন্দ মেনন, শিবপ্রকাশ ও কৈলাস বিজয়বর্গীয়। রাজ্য নেতাদের মধ্যে ছিলেন দিলীপ ঘোষ, মুকুল রায়, রাহুল সিনহা প্রমুখ। বৈঠকের পর দিলীপ ঘোষ বলেন, নির্বাচন আসছে, তাই এই বৈঠক। অমিতজি দীর্ঘদিন ধরে বাংলাকে দেখছেন। বাংলার বিষয়ে তিনি ওয়াকিবহাল। আমরা আগেই ওঁর সঙ্গে বৈঠক করতাম, কিন্তু ওঁর শারীরিক অসুস্থতার জন্য তা সম্ভব হয়নি। এখন উনি সম্পূর্ণ সুস্থ। তাই রাজ্যের বর্তমান পরিস্থিতি ও দলের কাজকর্ম ওঁর কাছে তুলে ধরলাম।

অমিত শা কী কী নির্দেশ দিলেন? দিলীপের বক্তব্য, কেন্দ্রীয় কৃষি আইন নিয়ে মানুষকে বিভ্রান্ত করা হচ্ছে। রাজ্যের মানুষকে তা ঠিকঠাক বোঝানোর কথা বলেছেন অমিত শা। সাংগঠনিক কাজের জন্য বহু মানুষ পার্টিতে এসেছেন। তাঁদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। তৈরি হয়েছে নয়া কমিটি। সেবিষয়ে জানানো হয়েছে অমিতজিকে।