আমপান ক্ষতিপূরণের টাকা লুটের স্বীকারোক্তি, গ্রেপ্তারের দাবিতে ঘেরাও, সংঘর্ষ

346

ক্যানিং: আমপান ক্ষতিপূরণের টাকা লুটের স্বীকারোক্তি ঘিরে মঙ্গলবার রাত থেকে ফের উত্তাল হয়ে উঠল দক্ষিণ ২৪ পরগনা মথুরাপুরের নন্দকুমার গ্রাম। এরজেরে বুধবার দুপুর থেকে পঞ্চায়েত অফিসের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন সাধারণ মানুষ ও বিজেপি কর্মী সমর্থকরা। খবর পেয়ে, ঘটনাস্থলে পুলিশ পৌঁছালে তাঁদের সঙ্গে বিজেপি কর্মী-সমর্থক ও গ্রামবাসীদের ধস্তাধস্তি শুরু হয়।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার আমপানের টাকা লুট করা হয়েছে বলে প্রকাশ্যে স্বীকার করে নেন সেখানকার পঞ্চায়েত সদস্য স্বপন  ঘাঁটি। এর পরপরই ড্যামেজ কন্ট্রোলে’ নেমে তৃণমূল কংগ্রেসের তরফে তড়িঘড়ি স্বপন ঘাঁটিকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। এরপর মঙ্গলবার রাতেই স্থানীয় পঞ্চায়েত প্রধান মোনা পাত্রর স্বামীর নেতৃত্বে এক দল তৃণমূল কংগ্রেস কর্মী ও সমর্থক অস্ত্রহাতে এলাকার বিজেপি সমর্থকদের বাড়িতে হামলা চালায়। তাঁদের বাড়িঘর ভাঙচুর করার অভিযোগ তোলা হয় বিজেপির তরফে।

- Advertisement -

এদিকে মঙ্গলবার রাতের ঘটনায় বিজেপির মদত থাকার অভিযোগ তুলে রাতেই পঞ্চায়েত প্রধানের স্বামীর নেতৃত্বে তাঁদের ওপর হামলা চালানো হয় বলে অভিযোগ বিজেপি কর্মী ও সমর্থকদের। শুধু তাই নয়, রাতের এই হামলার সময় তাঁরা বারবার রায়দিঘি থানায় অভিযোগ জানালেও পুলিশের তরফে সদর্থক পদক্ষেপ নেওয়া হয়নি বলেও অভিযোগ। আর এরই প্রতিবাদে এ দিন হাজারখানেক বিজেপি সমর্থক ও স্থানীয় মানুষ পঞ্চায়েত প্রধান মোনা পাত্রকে গ্রেপ্তারের দাবিতে পঞ্চায়েত অফিসের সামনে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।

পঞ্চায়েত প্রধান পুলিশকে খবর দিলে বিশাল পুলিশ বাহিনী এসে ওই বিক্ষোভকারীদের উপর চড়াও হয়। দফায় দফায় তাঁদের সঙ্গে চলে ধস্তাধস্তি ও হাতাহাতি। এই খবর লেখা পর্যন্ত পঞ্চায়েত প্রধানকে গ্রেপ্তারের দাবিতে বিজেপি ও সাধারণ মানুষের অবস্থান বিক্ষোভ চলছে বলে জানা গেছে।