ছেলের অত্যাচারে অতিষ্ঠ বৃদ্ধ দম্পতির গঙ্গায় ঝাঁপ

341
প্রতীকী ছবি

বারাসত: ছেলের অত্যাচারে অতিষ্ঠ হয়ে বাবা-মা গঙ্গায় ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ল উত্তর ২৪ পরগনার শ্যামনগর এলাকার পিরতলায়। জানা গিয়েছে, ওই বৃদ্ধ দম্পতির এক ছেলে ও এক মেয়ে। মেয়ের বিয়ে হয়েছে হুগলির শেওড়াফুলিতে। ছেলে, ছেলের বউ ও নাতিকে নিয়ে বাস করতেন বৃদ্ধ দম্পতি।

বৃদ্ধ বিশ্বনাথবাবু একসময় জুটমিলে কাজ করতেন। অবসর নেওয়ার পর সামান্য পেনশন পান তিনি। ছেলে বিপুল দাসেরও তেমন আয় নেই। তিনি কাঠমিস্ত্রির কাজ করেন। আর এর জেরেই অভাব-অনটনের কারণে প্রতিদিনই বৃদ্ধ বাবা ও মা সবিতা দাসকে প্রহৃত হতে হত ছেলের হাতে।

- Advertisement -

সেরকমই একটি ঘটনা ঘটে রবিবার। নাতি খাবারের জন্য কান্নাকাটি শুরু করে। আর তার জের গিয়ে পড়ে বৃদ্ধ দম্পতির ওপর। চলে তাদের বেধড়ক মারধর। এরপর অসহায় বৃদ্ধ দম্পতি চলে যান গঙ্গার ঘাটে। সেখানে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করেন। কিন্তু স্থানীয় বাসিন্দাদের নজরে বিষয়টি পড়ে যাওয়ায় তাঁরা গঙ্গা থেকে তাঁদের উদ্ধার করেন। পরে তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করে তাঁরা পুরো বিষয়টি জানতে পেরে স্থানীয় থানায় খবর দেন।

থানার বড়বাবু ঘটনাস্থলে এসে ওই বৃদ্ধ দম্পতিকে বাড়িতে পৌঁছে দেন। সেইসঙ্গে বাবা-মাকে মারধরের অভিযোগে ছেলেকে গ্রেপ্তার করতে চাইলেও বৃদ্ধ দম্পতি তাদের তা করতে দেননি। অবশেষে বাবা-মাকে দেখভালের মুচলেকা নিয়ে তাকে ছেড়ে দেয় পুলিশ। তবে পুলিশ সেখান থেকে যাওয়ার আগে প্রতিবেশীদের কাছে তার নিজের মোবাইল নম্বরটি দিয়ে অনুরোধ করেছেন বৃদ্ধ দম্পতির কোনওরকম অসুবিধার খবর পেলেই তারা যেন সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে জানান। থানার বড়বাবুর এহেন মানবিক আচরণে আপ্লুত এলাকার বাসিন্দারা।