করোনা উপসর্গ নিয়ে আইসোলেশন ওয়ার্ডে মৃত্যু হল এক বৃদ্ধের

391

রায়গঞ্জ: ফের করোনা উপসর্গ নিয়ে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের আইসোলেশন বিভাগ তথা কোভিড হাসপাতালে মৃত্যু হল এক বৃদ্ধের। শনিবার সকালে জ্বর,শ্বাসকষ্ট নিয়ে ওই বৃদ্ধকে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের আইসোলেশন বিভাগে ভর্তি করা হয়। এরপর দুপুর ২ টা নাগাদ সেখানেই তাঁর মৃত্যু হয়। হাসপাতাল সূত্রে খবর, ওই বৃদ্ধের নাম ক্ষিরোদ সরকার (৬৫)। বাড়ি ইটাহার থানা পতিরাজপুর। হাসপাতালে সূত্রে খবর,ক্ষীরোদ সরকারের মৃতদেহ রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের মর্গে রাখা হয়েছে।

পরিবার সূত্রে খবর, মৃত বৃদ্ধের নাতি অতিন সরকার দিন কয়েক আগে দিল্লি থেকে বাড়ি ফেরেন। আশঙ্কা করা হচ্ছে তার থেকেই ওই বৃদ্ধ করোনা সংক্রমিত হয়েছেন। বৃদ্ধের ছেলে বিকাশ সরকার বলেন, “প্রবল জ্বর ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে সকালে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজের আইসোলেশন বিভাগে ভর্তি করি। সেখান থেকে স্থানান্তর করা হয় মেডিকেল কলেজ সংলগ্ন কোভিড হাসপাতালে। আমার বাবার লালার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য মেডিকেল কলেজ কর্তৃপক্ষ নিয়ে গিয়েছে। রিপোর্ট আসার পরেই মৃতদেহ দেওয়া হবে বলে জানানো হয়েছে।” মৃতের অপর ছেলে টিঙ্কু সরকার বলেন,”হাসপাতালে তরফ থেকে আমাদের বাড়ি চলে যেতে বলা হয়েছে। রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত মৃতদেহ দেওয়া হবেনা। ফোন মারফত আমাদের ডেকে মৃতদেহ দেওয়া হবে।

- Advertisement -

এদিকে এই মুহূর্তে করোনা পজিটিভ হয়ে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসোলেশন বিভাগে পাঁচ জন চিকিৎসাধীন। ফের ওই আক্রান্তদের লালার নমুনা দ্বিতীয়বার পরীক্ষার জন্য পাঠানো হয়েছে। দ্বিতীয়বারের রিপোর্ট না আসা পর্যন্ত পজিটিভ বলতে নারাজ মেডিসিন বিভাগের চিকিৎসকেরা। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক মেডিসিন বিভাগের এক চিকিৎসক বলেন, প্রথমবার পজিটিভ রিপোর্ট আসলে দ্বিতীয়বারের রিপোর্টে পজিটিভই আসে। তবুও আমরা ঝুঁকি নিচ্ছি না।

বর্তমানে রায়গঞ্জ থানার কর্ণজোড়ার কোভিড হাসপাতালে এই মুহূর্তে ৪৪ জন করোনা আক্রান্ত হয়ে চিকিৎসাধীন রয়েছে। সেই সংখ্যা আরও বাড়বে বলে জানান কোভিড হাসপাতালের সুপারেনটেনডেন্ট ডক্টর দিলীপ কুমার গুপ্তা। তিনি বলেন, “উত্তর দিনাজপুর জেলায় গোষ্ঠী সংক্রমণ শুরু হয়ে গিয়েছে। এই মুহূর্তে ৯০ শতাংশ রোগীর কোনও ট্রাভেল হিস্ট্রি নেই। ফলে করোনা আক্রান্ত হয়ে যারা ভর্তি হচ্ছে তারা অধিকাংশই গোষ্ঠী সংক্রমণের শিকার। মানুষকে সচেতন থাকার পরামর্শ দিয়েছেন তিনি।

এই নিয়ে গত আটদিনে রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ সংলগ্ন কোভিড হাসপাতালে চারজনের মৃত্যু হয়েছে। একজনের বাড়ি ইটাহার থানার বেকিডাঙ্গা গ্রামে। মৃত কিশোরের নাম ইন্দ্রজিৎ বর্মন (১৭)। তার রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় তার মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়েছে। কালিয়াগঞ্জের এক যুবকের করোনা উপসর্গ নিয়ে মৃত্যু হলেও পরবর্তীতে রিপোর্ট নেগেটিভ আসায় মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়। হেমতাবাদ থানার এলাকার মৃত বৃদ্ধের লালার নমুনা রিপোর্টও নেগেটিভ আসায় মৃতদেহ পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়।