সেদ্ধ ডিমের আবদারে ৪ বছরের শিশুর গায়ে ফটন্ত গরম জল ঢাললেন অঙ্গনওয়াড়ি সহায়িকা ও কর্মী

604

রায়গঞ্জ, ১৪ ফেব্রুয়ারিঃ সামান্য একটি ডিম সেদ্ধ আবদার করায় ৪ বছরের শিশুর শরীরে ফুটন্ত গরম জল ফেলে দেওয়ার অভিযোগ উঠল অঙ্গনওয়াড়ি সহায়িকা ও কর্মীর বিরুদ্ধে। শুক্রবার উত্তর দিনাজপুর জেলার করণদিঘি থানার দোমোহনা গ্রাম পঞ্চায়েতের ফতেপুর মসজিদ পাড়ার ওই অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রের সহায়িকা মল্লিকা দাস এবং কর্মী আজমিরা খাতুনের এমন নির্মম ঘটনাকে কেন্দ্র করে এলাকায় তীব্র ক্ষোভ সৃষ্টি হয়েছে। শিশুটিকে আশঙ্কাজনক অবস্থায় রায়গঞ্জ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে ভরতি করানো হয়েছিল। পরে তার অবস্থা ক্রমশ অবনতি হওয়ায় রাতে শিশুটিকে উত্তরবঙ্গ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে স্থানান্তরিত করা হয়েছে। পরিবার ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, জখম সাব্বির মহম্মদ (৪) বাড়ি করণদিঘি থানার দোমোহনা গ্রাম পঞ্চায়েতের ফতেপুর গ্রামের বাসিন্দা। জখম শিশুর বাবা ফকারুল মহম্মদ জানান, তাঁর ছেলে একটা সিদ্ধ ডিম চাইতে গিয়েছিল। কিন্তু ডিম দেওয়ার বদলে, ফুটন্ত গরম জল ঢেলে দেওয়া হয়েছে। ঘটনাস্থলে পৌঁছনোর আগেই অঙ্গনওয়ারি সহায়িকা ও কর্মী পালিয়ে গিয়েছিলেন। ঘটনায় করণদিঘি থানায় ওই সহায়িকা ও কর্মীর বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। শিশুর পরিবার অভিযুক্তদের শাস্তির দাবি করেছে। এদিকে, ফুটন্ত গরম জলে কোমর থেকে পা পর্যন্ত চামড়া ঝলসে গিয়েছে। চিকিৎসকের বক্তব্য, ঘটনায় মূত্রাশয় গুরুতর জখম হওয়ার কারণে শিশুটি ৮ ঘণ্টা হয়ে গেলেও মূত্র ত্যাগ করতে পারেনি। অঙ্গনওয়াড়ি কেন্দ্রের উত্তর দিনাজপুর জেলা প্রকল্প আধিকারিক সুষেন চন্দ্র পোদ্দার জানান, অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু হয়েছে। করণদিঘি থানার আইসি ধ্রুব প্রধান জানিয়েছেন, ঘটনার দ্রুত তদন্তের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।