তৃণমূল নেতা খুন কাণ্ড: ধৃত সুপারি কিলারদের পালাতে সাহায্য়কারী

117

বর্ধমান: তৃণমূল নেতা খুনের ঘটনায় পূর্ব বর্ধমানের আউসগ্রাম থানার পুলিশের জালে ধরা পড়ল আরও এক। ধৃত আউসগ্রামের ভাতকুন্ডা গ্রামের বাসিন্দা আয়ুব খান। পুলিশের অনুমান, সুপারি কিলারদের পালাতে সাহায্য করার বিষয়ে ভূমিকা ছিল ধৃতের। মঙ্গলবার ধৃতকে বর্ধমান আদালতে পেশ করা হয়। তদন্তের স্বার্থে ধৃতকে ৬দিনের পুলিশি হেপাজতের নির্দেশ দিয়েছেন বিচারক। এনিয়ে আউশগ্রামের দেবশালা অঞ্চলের প্রাক্তন তৃণমূল যুব সভাপতি চঞ্চল বক্সীকে খুনের ঘটনায় চারজনকে গ্রেপ্তার করল পুলিশ।

পুলিশ পুলিশ সূত্রে খবর, চলতি মাসের ৭ তারিখ দুপুরে দুষ্কৃতীদের গুলিতে নিহত হন আউসগ্রামের দেবশালা পঞ্চায়েত প্রধান শ্যামল বক্সীর ছেলে চঞ্চল বক্সী(৪৪)। ঘটনার তদন্তে নেমে আউসগ্রাম থানার পুলিশ রবিবার দেবশালা পঞ্চায়েতের দুই তৃণমূল সদস্য আসানুল মোল্লা, মনির হোসেন মোল্লা সহ দেবশালা অঞ্চল তৃণমূলের সভাপতি হিমাংশু মণ্ডলের ছেলে বিশ্বরুপ মণ্ডলকে গ্রেপ্তার করে। ধৃতরা সুপারি কিলারদের দিয়ে
চঞ্চল বক্সীকে খুন করায় বলে পুলিশ এক প্রকার নিশ্চিত। সেক্ষেত্রে সুপারি কিলারদের নাগাল পেতে পুলিশ সোমবার ওই তিন ধৃতকে বর্ধমান আদালতে পেশ করে ৭ দিনের জন্য নিজেদের হেপাজতে নিয়েছে। তিন ধৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ চালিয়ে পুলিশ জানতে পারে চঞ্চল বক্সীকে খুনের ঘটনার পর থেকে আয়ুব খান খুনের ঘটনার মূল চক্রীদের সব খবরা খবর জানাচ্ছিল। আয়ুব সহ চার ধৃতকে জিজ্ঞাসাবাদ চালিয়ে পুলিশ খুনের ঘটনার বাকি ষড়যন্ত্রকারীদের খোঁজ শুরু করেছে।

- Advertisement -