অ্যাপ্রোচ রোড হয়নি, কাজে লাগছে না সেতু

মোস্তাক মোরশেদ হোসেন, রাঙ্গালিবাজনা : প্রায় ২০ লক্ষ টাকা ব্যয়ে সেতু নির্মাণ হলেও অ্যাপ্রোচ রোড তৈরি হয়নি। ফলে এলাকাবাসীর সমস্যাও মেটেনি। সেতু নির্মাণের পরও আলিপুরদুয়ার জেলার ফালাকাটা ব্লকের দেওগাঁও গ্রাম পঞ্চায়েতের দক্ষিণ দেওগাঁওয়ে যাতায়াতের ক্ষেত্রে দুর্ভোগে পড়তে হচ্ছে কয়েক হাজার বাসিন্দাকে। তাঁদের অভিযোগ, অ্যাপ্রোচ রোড তৈরি না হওয়ায় ওই সেতু দিয়ে কোনও গাড়ি চলাচল করতে পারে না। ফলে সেতুটি কোনও কাজে লাগছে না।

দক্ষিণ দেওগাঁওয়ের রাঙ্গালিবাজনা-ফালাকাটা সড়কের ভাঙারপাড় থেকে চেরগারটারি হয়ে বেলতলি যাওয়ার রাস্তাটি ১৯৯৩ সালের বন্যায় ভেঙে গিয়েছিল। সেই জায়গা দিয়ে আজও আশপাশের চাষের জমির জল বয়ে যায়। এই পথে যাতায়াতের জন্য ২৭ বছর ধরে বাসিন্দাদের ভরসা ছিল সাঁকো। দেওগাঁও গ্রাম পঞ্চায়েত সূত্রে খবর, চলতি অর্থবর্ষে আইএসজিপি প্রকল্পে ১৯ লক্ষ ৭৭ হাজার ৫২০ টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হয় সেতুটি। কিন্তু সেতু তৈরি করা হলেও অ্যাপ্রোচ রোড তৈরি করা হয়নি। দেওগাঁও গ্রাম পঞ্চায়েত সূত্রে খবর, সেতু তৈরির প্ল্যান এস্টিমেটে অ্যাপ্রোচ রোড তৈরির বিষয়টিই ধরা ছিল না। পরে আইএসজিপি প্রকল্পে আরও প্রায় আড়াই লক্ষ টাকা বরাদ্দ করে টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়। ঠিকাদার কাজও শুরু করেছিলেন। কিন্তু বৃষ্টির জন্য কাজ স্থগিত রাখা হয়। বৃষ্টিতে সেতুর দুই মুখের মাটিও ধুয়ে গিয়েছে বলে গ্রাম পঞ্চায়েত কর্তৃপক্ষের দাবি।

- Advertisement -

স্থানীয় বাসিন্দা হোসেন আলি বলেন, সেতু তৈরি করা হলেও অ্যাপ্রোচ রোড না থাকায় সেতুটি দিয়ে যাতায়াত ভীষণ সমস্যা হচ্ছে। বিশেষ করে গাড়ি নিয়ে ঘুরপথে যেতে হচ্ছে। রাতের অন্ধকারে অনেকেই দুর্ঘটনার কবলে পড়ছেন ওই সেতুতে। পঞ্চায়েতের উপপ্রধান রহিফুল আলম বলেন, অ্যাপ্রোচ রোড তৈরির জন্য অনেক আগেই টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। বর্ষার জন্যই কাজ হয়নি। খুব শীঘ্রই কাজ শুরু হবে।