ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি সহ অন্যান্যরা

59

গাজোল, ৩০ মে: প্রবল বর্ষণে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করলেন গাজোল পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি রেজিনা পারভিন। তাঁর সঙ্গে জেলা পরিষদ সদস্য সাগরিকা সরকার, তৃণমূল কংগ্রেসের ব্লক সভাপতি মানিক প্রসাদ উপস্থিত হয়েছিলেন। রবিবার তাঁরা মূলত আলাল এবং গাজোল ২ গ্রাম নম্বর পঞ্চায়েতের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাগুলো পরিদর্শন করেন। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের সঙ্গে কথা বলেন। ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা যাতে সরকারি সাহায্য থেকে বঞ্চিত না হন, সেজন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছেন। প্রশাসনিক এবং দলগত উভয়দিক থেকেই এ বিষয়ে সরকারের কাছে আবেদন করা হবে বলে জানিয়েছেন মানিকবাবু।

সামুদ্রিক ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে মালদা জেলার বিভিন্ন প্রান্তে মুষলধারে বৃষ্টিপাত হয়েছে। অতিবৃষ্টির জেরে জলের তলায় চলে গিয়েছে গাজোল ব্লকের প্রায় সমস্ত গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বোরো ধানের জমি। চরম ক্ষতির মুখে পড়েছেন কৃষকরা। জীবন বাজি রেখে জলের নীচ থেকে যে ধান তাঁরা উদ্ধার করে নিয়ে এসেছেন বর্তমানে তাঁর মান খুবই খারাপ। যার ফলে এই ধান বিক্রি করে যে, কিছুটা ক্ষতি পুষিয়ে নেবেন তাও হচ্ছে না। স্বাভাবিকভাবেই কৃষকরা চাইছেন এই অবস্থায় সরকার তাঁদের পাশে দাঁড়াক। শনিবার উত্তরবঙ্গ সংবাদে কৃষকদের দূরাবস্থার কাহিনী প্রকাশিত হয়। এদিন কৃষকদের বর্তমান অবস্থা খতিয়ে দেখতে বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করেন গাজোল পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি রেজিনা পারভিন, জেলা পরিষদ সদস্য সাগরিকা সরকার, তৃণমূল কংগ্রেসের ব্লক সভাপতি মানিক প্রসাদ প্রমুখ।

- Advertisement -

রেজিনা পারভিন বলেন, কৃষকদের অবস্থা সত্যিই খুব শোচনীয়। কৃষি দপ্তরের কাছ থেকে যে রিপোর্ট আমরা পেয়েছি তাতে দেখা যাচ্ছে, গাজোল ব্লকের ১৫টি গ্রাম পঞ্চায়েতের মধ্যে বেশিরভাগই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। প্রায় প্রত্যেকটি গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বোরো ধান চাষীরা ব্যপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন। আমরা পঞ্চায়েত সমিতির পক্ষ থেকে সরকারের কাছে এই সমস্ত ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা যাতে কিছুটা হলেও সরকারি সাহায্য পায়, সে বিষয়ে আবেদন করব। আমরা খবর পেয়েছি এলাকার অবস্থা খতিয়ে দেখার জন্য জেলা থেকে পরিদর্শক দল আসবেন। তাঁরা বিভিন্ন এলাকা পরিদর্শন করবেন। তারপর তাঁরা প্রশাসনের কাছে ক্ষয়ক্ষতির রিপোর্ট পেশ করবেন। কৃষকেরা কোথায় আবেদন করবেন বা কি পদ্ধতিতে আবেদন করবেন সে সম্পর্কে পরে বিস্তারিতভাবে জানা যাবে বলে তিনি মন্তব্য করেছেন। সেভাবেই কৃষকদের জানিয়ে দেওয়া হবে।

তৃণমূলের ব্লক সভাপতি মানিক প্রসাদ বলেন, দলগতভাবে আমরা প্রশাসনের কাছে এবং সরকারের কাছে এই সমস্ত কৃষকদের পাশে দাঁড়ানোর আবেদন করব। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কৃষকদের প্রতি যথেষ্ট সহানুভূতিশীল। আমরা মনে করছি ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের পাশে মুখ্যমন্ত্রী অবশ্যই দাঁড়াবেন। প্রকৃত ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকরা যাতে এই সাহায্য পান তা সুনিশ্চিত করার দিকে আমাদের নজর থাকবে।