প্রাক-বিশ্বকাপের ম্যাচে জয় ব্রাজিল, আর্জেন্টিনার

প্রতীকী ছবি।

সান্তিয়াগো : রবিবার ভারতীয় সময় মাঝরাতে মুখোমুখি হবে দুই চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী। তাই শুক্রবার ভোরের ম্যাচ জিতে ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার ফুটবলারদের মুখে পরবর্তী লড়াইয়ে প্রতিপক্ষের কথা।

বিশ্বকাপের যোগ্যতা অর্জন পর্বের ম্যাচে ফরোয়ার্ড এভার্টন রিবেইরোর একমাত্র গোলে চিলিকে হারিয়েছে ব্রাজিল। অন্য ম্যাচে ভেনেজুয়েলার বিরুদ্ধে ৩-১ গোলে জিতেছে আর্জেন্টিনা। কোপা ফাইনালের পর প্রথমবার প্রতিযোগিতামূলক ম্যাচ খেলল দক্ষিণ আমেরিকার দুই প্রতিবেশী। সেখানে পুরো পয়েন্ট পেয়ে খুশি দুপক্ষই। সপ্তম রাউন্ডের শেষে ২১ পয়েন্ট নিয়ে কাতারের টিকিট পাওয়ার দৌড়ে শীর্ষে রয়েছেন অপরাজিত নেইমাররা। অপরাজিত থাকলেও তিন ম্যাচ ড্র করার সুবাদে ১৫ পয়েন্ট নিয়ে দুইয়ে লিওনেল মেসিরা।

- Advertisement -

এদিন ব্রাজিলের লড়াই অবশ্য বেশ কঠিন ছিল। করোনা সংক্রমণ ও কোয়ারান্টিন সংক্রান্ত জটিলতার জেরে প্রিমিয়ার লিগে খেলা ফুটবলারদের পায়নি সাম্বা ব্রিগেড। সেই তালিকায় দুই প্রধান গোলরক্ষক অ্যালিসন বেকার ও এডেরসন এবং দুই প্রধান স্ট্রাইকার রবার্তো ফির্মিনো ও গ্যাব্রিয়াল জেসাস রয়েছেন। তার ওপর ডিফেন্সে লোক বাড়ানোর স্ট্র‌্যাটেজি নিয়ে প্রতিপক্ষকে চাপে রাখে চিলি। এরমধ্যেই ৬৪ মিনিটে ম্যাচের একমাত্র গোলটি করেন এভার্টন।

অন্য ম্যাচে তুলনায় সহজ প্রতিপক্ষ ছিল আর্জেন্টিনার সামনে। ম্যাচের ৩০ মিনিটের মধ্যে প্রতিপক্ষ ১০ জন হয়ে যাওয়ায় বাড়তি সুবিধা পায় লিওনেল স্কালোনির ছেলেরা। ২৮ মিনিট নাগাদ মেসিকে বিশ্রি ট্যাকেল করেন ভেনেজুয়েলার ডিফেন্ডার আদ্রিয়ান মার্টিনেজ। তাঁর বুটের স্টাড সরাসরি মেসির শিনবোনে আঘাত করে। দীর্ঘক্ষণ মাঠেই চিকিৎসা হয় মেসির চোটের। এরপর অবশ্য তিনি ফের খেলা শুরু করেন। তবে ওই ট্যাকেলের জন্য সরাসরি লাল কার্ড দেখেন ঘটনার মাত্র তিন মিনিট আগে মাঠে নামা আদ্রিয়ান।

১০ জন হয়ে যাওরার পর তেমন প্রতিরোধ গড়ে তুলতে পারেনি ভেনেজুয়েলা। প্রথমার্ধের শেষদিকে লওতারো মার্টিনেজের গোল কাঙ্খিত লিড এনে দেয়। ৭১ মিনিটে হোয়াকিন কোরেয়া ২-০ করার তিন মিনিটের মধ্যে লিড বাড়ান অ্যাঞ্জেল কোরেয়া। শেষদিকে পেনাল্টি থেকে জেফারসন সোটেল্ডো ব্যবধান কমালেও টানা ৭ নম্বর ম্যাচটি জিততে আর্জেন্টিনার কোনও সমস্যা হয়নি।