লাদাখের পরিস্থিতি প্রতিরক্ষা মন্ত্রীকে জানালেন সেনাপ্রধান

266

নয়াদিল্লি: শুক্রবার কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিংয়ের সঙ্গে দেখা করলেন সেনাবাহিনীর প্রধান মনোজ মুকুন্দ নারাভানে। লাদাখের বর্তমান পরিস্থিতি সম্পর্কে সেনাপ্রধান এদিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রীকে বিস্তারিত রিপোর্ট দেন। পূর্ব লাদাখে দু’দিনের সফরে গিয়েছিলেন সেনাপ্রধান। তিনি লাইন অফ অ্যাকচুয়াল কন্ট্রোল বা প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর পরিস্থিতি খতিয়ে দেখেন। সেখান থেকে ফিরে এদিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেন সেনাপ্রধান।

উল্লেখ্য, লাদাখে ভারত-চিন সীমান্তে গত প্রায় দু’মাস ধরে উত্তেজনা চলছে। ১৫ জুন রাতে পূর্ব লাদাখে চিনা সেনার সঙ্গে সংঘর্ষে কুড়ি জন ভারতীয় জওয়ান শহিদ হয়েছেন। পাশাপাশি ৪৩ জন চিনা সেনার হতাহতের খবর পাওয়া গিয়েছে। যদিও চিন এখনও তা স্বীকার করেনি। তবে একজন চিনা কমান্ডিং অফিসারের মৃত্যু হয়েছে বলে মেনে নিয়েছে চিন।

- Advertisement -

সংঘর্ষের পর দুই দেশের বিদেশমন্ত্রকের মধ্যে কথা হয়েছে। কিন্তু সমস্যার সমাধান বেরিয়ে আসেনি। চিন সংঘর্ষের জন্য উলটে ভারতকেই দায়ী করেছে। যদিও ভারতের বিদেশমন্ত্রক জানিয়েছে, চিনা সেনা পরিকল্পনা করেই ভারতীয় জওয়ানদের ওপর হামলা করেছে।  উপগ্রহ চিত্রে দেখা গিয়েছে, প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর ঘাঁটি তৈরি করেছে চিন। তবে বসে নেই ভারতও। ইতিমধ্যেই প্রকৃত নিয়ন্ত্রণরেখা বরাবর প্রচুর সেনা মোতায়েন করেছে ভারত। সেইসঙ্গে গেরিলা যুদ্ধে দক্ষ বাহিনী পাঠানো হচ্ছে।

প্রকৃত নিয়ন্ত্রণ রেখায় আইটিবিপি অর্থাৎ ইন্দো-তিব্বত বর্ডার পুলিশের বিশেষ ফোর্স মোতায়েন করা হয়েছে। চিন সীমান্তে নজরদারি জন্য ইজরায়েল থেকে কেনা সশস্ত্র ড্রোন হেরান টিপি ব্যবহার করা হচ্ছে। এই ড্রোন দিয়ে শত্রু ঘাঁটিতে সহজেই আঘাত হানা সম্ভব। লাদাখে ভারত-চিন সীমান্তে যেকোনও পদক্ষেপের ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেওয়ার জন্য সেনাকে পূর্ণ স্বাধীনতা দিয়েছেন প্রতিরক্ষা মন্ত্রী রাজনাথ সিং। এরই মাঝে সেনাপ্রধান এদিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করেছেন। তাঁরা এখন কী পদক্ষেপ করেন, সেদিকেই তাকিয়ে গোটা দেশ।