গোরু পাচার মামলায় তৃণমূল নেতা বিনয় মিশ্রর নামে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা

150

আসানসোল: গোরু পাচারের মামলায় এবার তৃণমূল যুব কংগ্রেসের নেতা বিনয় মিশ্রর নামে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করল আসানসোলের সিবিআইয়ের বিশেষ আদালত। সেই পরোয়ানা হাতে নিয়ে মঙ্গলবার ও বুধবার সকালে সিবিআইয়ের অফিসাররা বিনয়ের খোঁজে একাধিক জায়গায় তল্লাশি চালান। কিন্তু বুধবার দুপুর পর্যন্ত তাঁর কোনও খোঁজ মেলেনি। জানা গিয়েছে, তদন্তকারীদের আবেদনের ভিত্তিতে আসানসোল সিবিআইয়ের বিশেষ আদালতের বিচারক জয়শ্রী বন্দ্যোপাধ্যায় সোমবার বিনয় মিশ্রর বিরুদ্ধে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

এর আগে সিবিআই এই গোরু পাচারের মামলায় অন্যতম অভিযুক্ত হিসাবে এনামুল হক ও বিএসএফের কমাডান্ট সতীশ কুমারকে গ্রেপ্তার করে। যার মধ্যে সতীশ কুমার আপাতত জামিনে বাইরে রয়েছেন। এনামুল হকের জামিন বেশ কয়েকবার সিবিআই আদালতের বিচারক বাতিল করে দেওয়ায় তিনি আসানসোল জেল বা বিশেষ সংশোধনাগারে রয়েছেন। সিবিআই এই গোরু পাচারের মামলায় একাধিক পুলিশ, বিএসএফ ও কাস্টমসের অফিসারদের নোটিশ পাঠিয়ে জেরা করেছে বলে আসানসোল আদালতে দাবি করেছে। এই মামলায় ফেরার থাকা বিনয় মিশ্রর ভাই বিকাশ মিশ্রকে সিবিআই কলকাতার নিজাম প্যালেসে তিনবার ডেকে পাঠিয়ে বেশ কয়েক ঘণ্টা জেরা করেছে। কিন্তু সিবিআই বিকাশের কাছ থেকে বিনয়ের কথা জানতে পারেনি। বিনয়কে হাজিরা দেওয়ার জন্য সিবিআই তিনবার নোটিশ পাঠিয়েছিল। প্রত্যেকবারই বিনয় মিশ্র আইনজীবী মারফত চিঠি পাঠিয়ে জানান, তিনি পরে আসবেন। শেষবার তিনি বলেছিলেন, ১৯ জানুয়ারি হাজিরা দেবেন। কিন্তু সেদিন না আসায় সিবিআই আসানসোলের বিশেষ আদালতে বিনয় মিশ্রর নামে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারির আবেদন করে।

- Advertisement -

অন্যদিকে, সিবিআই একইসঙ্গে বেআইনি কয়লা কারবারির মামলায় তদারকি করছে। এই মামলায় অন্যতম অভিযুক্ত পুরুলিয়ার অনুপ মাজি ওরফে লালার খোঁজ পায়নি সিবিআই। তাঁর নামেও গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছিল। তারপরেও লালার খোঁজ না পাওয়ায় সিবিআই আদালত তাঁকে ফেরার ঘোষণা করেছে। লালার অন্যতম সঙ্গী রত্নেশ ভার্মাকে ফেরার ঘোষণা করা হয়েছে। এরপর দুজনের খোঁজ না পেলে তাঁদের সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হবে বলে জানা গিয়েছে।