শালকুমারহাট, ২৮ মেঃ  ১২ বছরের এক নাবালিকাকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে চাঞ্চল্য ছড়াল আলিপুরদুয়ার ১ ব্লকের শিলবাড়ি এলাকায়। অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আটক করে সোনাপুর ফাঁড়ির পুলিশের কাছে তুলে দেন গ্রামবাসীরা।পুলিশ জানিয়েছে, ধৃত ব্যক্তির নাম পাগলা মুন্ডা (৩৫)। ওই নাবালিকার মায়ের লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে তাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
জানা গিয়েছে, রবিবার রাতে ওই নাবালিকা রান্নাঘরে কাজ করছিল। অভিযোগ, সেই সময় প্রতিবেশী পাগলা মুন্ডা ওই ঘরে এসে তাকে জড়িয়ে ধরে। নাবালিকার চিৎকার শুনে তাঁর দাদা রান্নাঘরে চলে এসে পাগলা মুন্ডাকে ধরে মারধর করে ঘর থেকে বের করে দেয়। এদিন নাবালিকার পরিবার একটি স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সদস্যদের গোটা বিষয়টি জানায়। তারপর স্থানীয়রা অভিযুক্ত ব্যক্তিকে আটক করে পুলিশের হাতে তুলে দেয়। পরে পুলিশি জেরায় অভিযুক্ত ব্যক্তি ওই নাবালিকাকে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগ অস্বীকার করেন। মেয়েটির পরিবার ও স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার তরফে অভিযুক্তের কঠোর শাস্তির দাবি তোলা হয়েছে। সোনাপুর ফাঁড়ির ওসি শচীন্দ্রনাথ বসুনিয়া জানান, ‘নাবালিকার মায়ের লিখিত অভিযোগ আলিপুরদুয়ার মহিলা থানায় পাঠিয়ে দেওয়া হয়েছে। ঘটনায় ধৃত পাগলা মুন্ডাকেও আলিপুরদুয়ারে পাঠানো হয়েছে।’
সংবাদদাতাঃ সুভাষ বর্মন