জমি বিবাদের জেরে খুনের ঘটনায় অভিযুক্ত গ্রেপ্তার

393

সামশেরগঞ্জ: অবশেষে পুলিশের জালে ধরা পড়ল সামশেরগঞ্জ থানার ধুলিয়ানে ইমরান শেখ খুনের ঘটনায় মূল অভিযুক্ত বারিক শেখ। ধৃত বারিক সম্পর্কে জঙ্গিপুর লোকসভা কেন্দ্রের সাংসদ খলিলুর রহমানের ভাইপো এবং মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের পরিবেশ ও স্বাস্থ্য কর্মাধ্যক্ষ আনারুল হকের ভাই বলে খবর।

গত ৪ তারিখে ধুলিয়ান পৌরসভা ১৩ নম্বর ওয়ার্ডের একটি জমি দখলকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে এলাকা। অভিযোগ সেই সময় বারিক এবং জাকিরের নেতৃত্বে ৪০ থেকে ৫০ জন সশস্ত্র দুষ্কৃতী হামলা চালায় জমির প্রকৃত মালিকদের ওপর। এই ঘটনায় গুরুতর আহত হন ইমরান সহ আরও ১০ জন। ইমরানকে মুর্শিদাবাদ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে তাঁর মৃত্যু হয়।

- Advertisement -

ঘটনার দিনই লিখিত অভিযোগের ভিত্তিতে সামশেরগঞ্জ থানার পুলিশ ৬ জনকে বিভিন্ন স্থান থেকে গ্রেপ্তার করে। সুত্রের খবর, বৃহস্পতিবার রাতে ঝাড়খণ্ডের পাকুর এলাকায় অভিযান চালিয়ে বরজাহান আলি, হুমায়ুন আলি এবং আশিকুল ইসলাম নামে আরও ৩ অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করে।

এদিন জেলা পুলিশের এক আধিকারিক জানান, ধৃতদের জেরা করে বারিক শেখের খোঁজ পাওয়া যায়। সে খুনের ঘটনার পরই ডালখোলার কাছে একটি গোপন ডেরাতে লুকিয়ে ছিল। বৃহস্পতিবার রাতেই জেলা পুলিশের একটি টিম ডালখোলা চলে যায় বারিককে ধরতে। শুক্রবার ভোর রাতে বারিককে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

সামশেরগঞ্জ থানার এক আধিকারিক জানিয়েছেন, ধৃত বারিক সহ আরও তিনজনের ১০ দিনের পুলিশি হেপাজত চেয়ে শুক্রবার জঙ্গিপুর আদালতে পেশ করা হয়েছে।

অন্যদিকে বারিকের গ্রেপ্তারের পর থেকেই তাঁর দাদা আনারুল হকের মোবাইল ফোনটি সুইচড অফ রয়েছে। যদিও এই বিষয়ে জঙ্গিপুরের সাংসদ খলিলুর রহমান কোনো মন্তব্য করতে চাননি।

প্রসঙ্গত, গত ৪ তারিখে ইমরানের মৃত্যুর পরই স্থানীয় বিধায়ক আমিরুল ইসলাম সামশেরগঞ্জ থানার সামনে ধর্নায় বসেছিলেন বারিক সহ অন্য অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে।

জেলা তৃণমূলের মুখপাত্র গৌতম ঘোষ বলেন, ‘বারিক আমাদের দলের কোন পদে ছিলনা। যদি সে কোন অপরাধ করে থাকে আইন আইনের পথে চলবে।’