নয়াদিল্লি, ৫ অগাস্ট :  সংবিধানের ৩৭০ ধারা বাতিল করে দিলেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। সোমবার রাজ্যসভায় রাষ্ট্রপতির দেওয়া বিজ্ঞপ্তি পড়ে শোনালেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শা। এর পাশাপাশি তিনি আনলেন জম্মু-কাশ্মীর রাজ্য পুনর্গঠন বিল। তাতে বলা হয়েছে, জম্মু-কাশ্মীরকে দু’ভাগ করা হবে। তার মধ্যে একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হবে লাদাখ। অপর কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হবে জম্মু-কাশ্মীর। দু’টি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলেই প্রশাসনের শীর্ষে থাকবেন একজন করে লেফটেন্যান্ট গভর্নর।  স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘‌সংবিধানের ৩৭০-এর সব ধারা কাশ্মীরের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য নয়।’ অমিত শা ৩৭০ ধারা বাতিলের প্রস্তাব পেশ করতেই রাজস্যসভায় হইহট্টগোল শুরু করে দেন বিরোধীরা। অমিত বলেন, তিনি বিরোধী দলনেতা, বিরোধী সব নেতানেত্রী এবং শাসক দলের সবার সঙ্গে আলোচনায় বসতে রাজি আছেন তিনি। কেন্দ্রীয় আই‌নমন্ত্রী রবিশঙ্কর প্রসাদ এদিন রাজ্যসভায় বলেন, কাশ্মীরের উন্নয়নের জন্যই এই ধারা প্রত্যাহারের প্রয়োজন। ৩৭০ ধারা প্রত্যাহার করতে রাষ্ট্রপতির কাছে সুপারিশ করেছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী।

লাদাখ সম্পর্কে রাষ্ট্রপতির বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, ওই অঞ্চলের আয়তন যথেষ্ট বড়। সেখানে খুব কম লোক বাস করেন। সেখানকার ভূপ্রকৃতি বন্ধুর। লাদাখের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়ে আসছেন, ওই অঞ্চলটি কেন্দ্রের শাসনের আওতায় আনা হোক। তাতে সেখানকার মানুষের আকাঙ্ক্ষা পূরণ হবে। জম্মু-কাশ্মীর সম্পর্কে বলা হয়েছে, সীমান্তের ওপার থেকে এসে সন্ত্রাসবাদীরা সেখানে অশান্তি সৃষ্টি করছে। সেই পরিস্থিতির কথা বিবেচনা করে জম্মু ও কাশ্মীরকেও পৃথক একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলে পরিণত করা হচ্ছে। গতকাল গভীর রাতে গৃহবন্দি করা হয় কাশ্মীরের প্রধান নেতা মেহবুবা মুফতি, ওমর আবদুল্লা ও সাজ্জাদ লোনকে। অন্যদিকে, কাশ্মীরে এই অস্থিরতার মধ্যেই শেয়ারবাজারে ধস নামে। সকালে শেয়ার বাজার খুলতেই একটি ধাক্কায় ৬৫০ পয়েন্ট পড়ে যায় সেনসেক্স। নিফটিও নেমে আসে ১০,৮০০ পয়েন্টের নিচে।