ফিটনেস নিয়ে আরও কড়া কোচ অরুণ

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা : রাজকোটে রঞ্জি ট্রফি হাতছাড়া হওয়ার আফশোস এখনও যায়নি তাঁর।

২০২০ সালের মার্চ মাসে সেই রঞ্জি ফাইনালের কয়েকদিন পরই করোনা অতিমারির কারণে থমকে গিয়েছিল জীবন। বন্ধ হয়েছিল ক্রিকেট সহ দেশের সব খেলা। শুরু হয়েছিল লকডাউন। যার ফলে শেষ মরশুমে বেশিরভাগ ঘরোয়া প্রতিযোগিতাও হয়নি। সৈয়দ মুস্তাক আলি, বিজয় হাজারের মতো হাতে গোনা কয়েকটি প্রতিযোগিতা হয়েছিল। আর চূড়ান্ত ব্যর্থ হয়েছিল টিম বাংলা।

- Advertisement -

হতাশায় ভরা শেষ মরশুমে যাই হোক না কেন, আগামী সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হতে চলা ঘরোয়া মরশুমে এবার নতুনভাবে শুরু করতে চান কোচ অরুণ লাল। শনিবারই বাংলার কোচ হিসেবে তাঁর নাম ঘোষণা হয়ে গিয়েছে। আগামীকাল বিকেলে সিএবিতে বাংলার কোচ ও তাঁর নয়া সহকারীদের সঙ্গে আলোচনার বসার কথা বাংলা ক্রিকেটের শীর্ষ কর্তাদের। তার আগে আজ সন্ধ্যার দিকে বাংলা কোচের সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফিটনেস নিয়ে এবার আরও কড়া হওয়ার কথা শোনালেন। কারণ, অভিজ্ঞ বাংলা কোচের মনে হচ্ছে, শেষ মরশুমে বাংলা দলের চূড়ান্ত ব্যর্থতার পিছনে অন্যতম কারণ হল ফিটনেস। লালজির কথায়, ফিটনেস নিয়ে কোনও সমঝোতা নয়। শেষ মরশুমে যতটা খেলা হয়েছিল, সবগুলো প্রতিযোগিতাতেই ব্যর্থ হয়েছিলাম আমরা। দলের ফিটনেসে ঘাটতি ছিল। এবার ফিটনেস নিয়ে আরও সক্রিয়ভাবে কাজ করতে চাই আমি। সিএবি কর্তাদেরও আমার ভাবনার কথা জানিয়েছি।

সাম্প্রতিক অতীতে সর্বভারতীয় ক্রিকেটে বাংলা দলের সবচেয়ে বড়ো সমস্যা ছিল ব্যাটিং। সেই সমস্যা কী এবার মিটবে? তার চেয়ে বড় প্রশ্ন, রাজ্যের ক্রীড়া প্রতিমন্ত্রী মনোজ তিওয়ারিকে কি পাওয়া যাবে দলে? মনোজ এখনও তাঁর অবসর ঘোষণা করেননি। কিন্তু রাজ্যের মন্ত্রীর দায়িত্ব সামলে তাঁর পক্ষে মাঠে নামা সম্ভব কি না, কারোর জানা নেই। কোচ অরুণের কাছেও এব্যাপারে স্পষ্ট উত্তর নেই। রীতিমতো ধোঁয়াশা নিয়ে তিনি বলেন, এব্যাপারে আমার কিছু বলা ঠিক হবে না। মনোজের ব্যাপারে সিএবি ভালো বলতে পারবে। তবে ওর মতো ম্যাচ উইনারকে দলে পেলে ভালোই হয়।