শ্রমমন্ত্রীর সভায় মোহন শর্মা না থাকায় জল্পনা তুঙ্গে

104

কালচিনি: নিজের এলাকায় অনুষ্ঠিত দলীয় কর্মসূচিতেও দেখা গেল না তৃণমূলের প্রাক্তন আলিপুরদুয়ার জেলা সভাপতি ও জেলা পরিষদের মেন্টর মোহন শর্মাকে। কালচিনির থানা মাঠে এদিন দলের চা শ্রমিক সংগঠনের কর্মীসভায় প্রধান বক্তা হিসেবে উপস্থিত ছিলেন শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক। ভোটের মুখে নিজের এলাকায় অনুষ্ঠিত এমন কর্মসূচিতে জেলার চা শ্রমিক সংগঠনের অন্যতম শীর্ষ নেতা মোহনবাবু না আসায় ফের জেলাজুড়ে তাঁকে নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে।

এদিকে, জেলা ছাড়াও কালচিনি ব্লকের রাজনৈতিক মহল মনে করছে মোহনবাবু বিজেপিতে যোগদান করার প্রবল সম্ভাবনা রয়েছে।দলের জেলা সভাপতি মৃদুল গোস্বামী অবশ্য মোহনবাবুর দল পরিবর্তনের জল্পনা উড়িয়ে দিয়েছেন। তিনি জানান, মোহন শর্মা দলের অনেকগুলি পদে আছেন। তবে তিনি কেন এদিন কর্মসূচিতে এলেন না এই বিষয়ে মোহনবাবুই বলতে পারবেন বলে জানিয়েছেন দলের জেলা সভাপতি। যদিও মোহন শর্মা ফোন না তোলায় তাঁর মন্তব্য পাওয়া যায়নি। তবে মোহন শর্মার ঘনিষ্ঠ চা শ্রমিক সংগঠনের অন্যতম শীর্ষনেতা অসীম মজুমদার জানান, মোহনবাবু চা বাগান তৃণমূল কংগ্রেস মজদুর ইউনিয়নের সভাপতি। মোহনবাবুর সাথে রবিবারের কর্মসূচি নিয়ে দলের তরফে কোনও আলোচনাই হয়নি। দায়সাড়াভাবে তাঁকে শনিবার কর্মসূচির বিষয়ে জানানো হয়েছে। সেই কারণেই মোহনবাবু এদিন কর্মীসভায় যাননি। তবে মোহন শর্মা দল ছাড়ছেন না বলে জানিয়েছেন অসীমবাবু।

- Advertisement -

অন্যদিকে, দিন কয়েক আগে কালচিনি ব্লকের বন্ধ মধু চা বাগানের শ্রমিকরা বাগান খোলার দাবিতে পথ অবরোধ করে বিক্ষোভ দেখান। ব্লকের তোর্ষা চা বাগানের শ্রমিক মহলেও বাগান না খোলায় শাসকদলের প্রতি অসন্তোষ দেখা দিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে বিধানসভা নির্বাচনে কালচিনি আসনে প্রভাব পড়বে কিনা জানতে চাওয়া হলে শ্রমমন্ত্রী মলয় ঘটক ওই দুই বাগান খোলা নিয়ে সরাসরি কোন মন্তব্য করেননি। তিনি বলেন, ‘প্রতিটি বন্ধ বাগান খোলার বিষয়ে আমরা নিয়মিত আলোচনা চালাচ্ছি। বীরপাড়া সহ বেশ কিছু বাগান খোলার ব্যবস্থা হয়েছে। আসন্ন নির্বাচনে ডুয়ার্সের চা বলয়ে খেলা কেমন হবে জানতে চাইলে শ্রম মন্ত্রী বলেন গোটা উত্তরবঙ্গে কোন খেলা হবে না। কারন প্রতিটি আসনে তৃণমূল প্রার্থীরা জিতবে। রাজ্যেও ক্ষমতায় ফিরবে তৃণমূল।’