আসালঙ্কার ঝাঁঝে হারল বাংলাদেশ

বাংলাদেশ – ১৭১/৪

শ্রীলঙ্কা – ১৭২/৫

- Advertisement -

শারজা : ম্যাচের আগে শারজায় মিরপুরকে খুঁজে পেয়েছিলেন বাংলাদেশ কোচ রাসেল ডমিঙ্গো। রবিবার অবশ্য ঘরের মাঠের দাপট দেখাতে পারলেন না। উলটে ফের একবার বড় আসরে বিড়াল হওয়ার প্রবাদকেই সত্যি করলেন বাংলার বাঘরা। অন্যদিকে চারিথ আসালঙ্কা ও ভানুকা রাজাপক্ষের সৌজন্যে ৫ উইকেটের দাপুটে জয় শ্রীলঙ্কার।

এদিন দল নির্বাচনে চমক দিয়েছিল দুপক্ষই। একদিকে পেসার তাস্কিন আহমেদকে বসিয়ে বাঁহাতি স্পিমার নাসুম আহমেদকে দলে নেয় বাংলাদেশ। উল্টো পথে হেঁটে চোট পাওয়া স্পিনার মহেশ তিকসানার পরিবর্ত হিসেবে বেঁছে নিয়েছে পেসার বিনুরা ফার্নান্ডোকে। টসে জিতে বোলিং নেয় শ্রীলঙ্কা। বাংলাদেশের অবশ্য তাতে সুবিধা হওয়ারই কথা। কারণ অধিনায়ক মাহমদুল্লার দাবি, টসে জিতলে আগে ব্যাট করতেন তাঁরা।

দীর্ঘদিন পর দলকে স্বস্তি দিল বাংলাদেশের ওপেনিং জুটি। লিটন দাস (১৬) ও মহম্মদ নইমের (৬২) জুটিতে উঠল ৪০ রান। তবে সাকিব আল হাসানের (১০) ব্যর্থতার দিনেই ফর্মে ফিরলেন মুশফিকুর রহিম (৫৭ অপরাজিত)। নইম-রহিমের তৃতীয় উইকেটে তোলা ৭১ রানের জুটি বাংলাদেশকে বড় স্কোরে নিয়ে যায়। শেষদিকে দ্রুত রান করলেন মাহমদুল্লাও (৫ বলে ১০ অপরাজিত)। নির্ধারিত ২০ ওভারে ১৭১/৪ স্কোর করে বাংলাদেশ। চামিকা করুণারত্নে, বিনুরা ও লাহিরু কুমারা একটি করে উইকেট নেন।

বিশাল রান তাড়া করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় শ্রীলঙ্কা। চতুর্থ বলে সাজঘরে ফেরেন দলের অভিজ্ঞতম ব্যাটার কুশল পেরেরা (১)। অন্য ওপেনার পাথুম নিশাঙ্কাকে (২৪) সঙ্গে নিয়ে জয়ে ভিত তৈরিতে মন দেন আসালঙ্কা। আট ওভারে ৭১/১ স্কোর নিয়ে জয়ে লক্ষ্যে অনেকটাই এগিয়ে যায় শ্রীলঙ্কা। এই সময় জ্বলে উঠলেন সাকিব। তাঁর একই ওভারে সাজঘরে নিশাঙ্কা ও আভিষ্কা ফার্নান্ডো (০)।

পরামর্শদাতা মাহেলা জয়বর্ধনে বায়ো বাবলের ঝক্কি এড়াতে দেশে ফিরেছেন। তবে যাওয়ার আগে ওয়ানিন্দু হাসারঙ্গাকে (৬) ব্যাটিং অর্ডারে কিছুটা তুলে এনেছেন। আগের ম্যাচগুলিতে এই ফর্মুলা খাটলেও এদিন ডাহা ফেল। ফলে ৭১/১ থেকে দ্রুত ৭৯/৪ হয়ে গেল শ্রীলঙ্কার স্কোর।

এই সময়ে হাল ধরলেন রাজাপক্ষে। আসালঙ্কার সঙ্গে জুটিতে তুললেন ৮৬ রান। ৩১ বলে ৫৩ রানের ঝকঝকে ইনিংস খেলে রাজাপক্ষে যখন ফিরছেন, জয়ে খুব কাছে শ্রীলঙ্কা। বাতিটা করলেন আসালঙ্কা। ৪৯ বলে অপরাজিত ৮০ রানের দুরন্ত ইনিংসে ম্যাচের সেরা হলেন তিনিই। ৭ বল বাকি থাকতেই ১৭২/৫ স্কোর বোর্ডে তুলে নেয় শ্রীলঙ্কা।

কয়েক বছর আগের নিদহাস ট্রফির গন্ডগোলের স্মৃতি ফিরল বিশ্বকাপের মঞ্চেও। ঝামেলায় জড়ালেন লাহিরু ও লিটন। ঘটনার সূত্রপাত লাহিরুর বলে লিটন ব্যাট করার সময়। লিটনের মারা একটি বল ধরে দ্রুত তাঁর দিকে ছুড়ে দেন লাহিরু। বল অবশ্য ব্যাটারের গায়ে লাগেনি। কিছুক্ষণ পর তাঁর বলেই লিটন আউট হতেই ঝামেলা শুরু। দেখা যায় উত্তপ্ত বাক্য বিনিময় করতে করতেই ধাক্কাধাক্কি শুরু করেছেন দুই ক্রিকেটার।

এরপর বাংলাদেশের অন্য ওপেনার নইম ও আম্পায়াররা এসে পরিস্থিতি সামলান। মনে করা হচ্ছে আম্পায়ারদের রিপোর্টেও বিষয়টি উল্লেখ করা হবে। সেক্ষেত্রে ম্যাচ রেফারির শাস্তির মুখে পড়তে হতে পারে দুই ক্রিকেটারকে।