পিচ নিয়ে সমালোচকদের একহাত অশ্বীনের

আহমেদাবাদ : আদ্যন্ত সুখি পরিবারের ছবি!

পরস্পরের প্রতি রয়েছে পেশাদারি শ্রদ্ধা। রয়েছে ভালোবাসা। সঙ্গে আবেগও।

- Advertisement -

নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে দেড় দিনের মধ্যে গোলাপি টেস্ট শেষ না হলে আজ হতে পারত ম্যাচের চতুর্থ দিন। হয়তো ম্যাচের উত্তেজক সমাপ্তি নিয়ে আলোচনা চলত ক্রিকেটমহলে।

এখন আর সেসবের বালাই নেই। বরং রয়েছে বিশ্রাম ও ছুটির মেজাজ। যার মধ্যে বিরাট কোহলির ভারত সিরিজের শেষ টেস্ট নিয়ে ভাবনা শুরু করেছে বলে খবর। আবার একইসঙ্গে জোড়া ঘটনার মধ্যে দিয়ে আজ টিম ইন্ডিয়ার আত্মবিশ্বাসের ছবিটাও সামনে এসেছে। এক, ব্যক্তিগত কারণে কোহলি-শাস্ত্রীর পাশে বিসিসিআইয়ে অনুমতি নিয়ে ৪ মার্চ থেকে মোতেরায় শুরু হতে চলা শেষ টেস্ট থেকে সরে দাঁড়িয়েছেন পেসার জশপ্রীত বুমরাহ। তাঁর পরিবর্ত হিসেবে কাউকে দলে নেওয়া হয়নি। যার মধ্যে স্পষ্ট ইঙ্গিত হল, শেষ টেস্টেও ঘূর্ণির ঘেরাটোপে খেলা হওয়া একশো শতাংশ নিশ্চিত।

দুই, আজ বিকেলে ভার্চুয়াল সাংবাদিক সম্মেলনে হাজির হয়েছিলেন রবিচন্দ্রন অশ্বীন। যেখানে ৪০০ টেস্ট উইকেটের নয়া মালিক ফের একহাত নিয়েছেন পিচ সমালোচকদের। অশ্বীনের কথায়, অতীতে বলেছি। আজ আবারও বলছি, ব্যক্তিগতভাবে কেউ যেকোনও বিষয়ে মন্তব্য করতেই পারেন। সেটা ঠিক না ভুল, তা নিয়ে আমার কিছু বলার নেই। ঘটনা হল, উইকেট নিয়ে এত কথার মানে জানা নেই আমার। ঠিক বুঝতে পারি না ব্যাপারটা। আমরা যখন অন্য দেশে খেলতে যাই, তখন তো এভাবে রোজ পিচ নিয়ে কথা বলি না।

নরেন্দ্র মোদি স্টেডিয়ামে দেড় দিনের সামান্য বেশি সময়ে শেষ হয়ে গিয়েছে গোলাপি টেস্ট। টিম ইন্ডিয়া সিরিজে এগিয়ে গিয়েছে। আর তারপর থেকেই মোতেরার বাইশ গজ নিয়ে ক্রিকেট বিশেষজ্ঞরা দুই ভাগে বিভক্ত হয়ে গিয়েছেন। যদিও রোহিত শর্মা ও বিরাট কোহলিরা পিচকে ঢালাও শংসাপত্র দিয়েছেন। একই সুর আজ শোনা গিয়েছে ভারতীয় অফস্পিনারের গলায়। অশ্বীনের কথায়, পিচ নিয়ে এমন আলোচনায় খুব মজা পাই আমি। সংবাদমাধ্যমে শিরোনাম পাওয়া যায় সহজেই। নিউজিল্যান্ড, অস্ট্রেলিয়া, দক্ষিণ আফ্রিকায়খন আমরা যে দেশে গিয়েছি, খেলা শুরুর আগে কোহলি স্পষ্ট করেছে যেকোনও পিচের চ্যালেঞ্জ নিতে আমরা তৈরি। তাই এখন এসব নিয়ে আলোচনার কোনও মানে বুঝতে পারি না।

অশ্বীনের কথায়, টেস্ট ক্রিকেট জিততে হলে বিপক্ষ দলের ২০ উইকেট নিতে হবে। আর উইকেট দখলের মূল দায়িত্ব থাকে বোলারদের। সঙ্গে ব্যাটসম্যানদের রানও করতে হয়। বোলাররা ম্যাচ জেতায়, ক্রিকেটে খুব চালু কথা এটা। কিন্তু ব্যাটসম্যানদেরও রান করতে হয় সঙ্গে। উইকেটে প্রথম দিন সিমাররা সাহায্য পাবে, পরের দুই-তিন দিন বল ঘুরবে। আমায় বলতে পারেন এমন কোনও নিয়ম ক্রিকেটে আছে কি? আমার তো জানা নেই। ভালো উইকেট কাকে বলে, বলতে পারেন কেউ, পাল্টা প্রশ্ন তাঁর।