ছন্দে থাকা সুনীলদের নিয়ে সতর্ক হাবাস

মালে : ১৩ মার্চের পর ১৮ অগাস্ট। মাঝে সময়ের ব্যবধান ১৫৭ দিনের। ঠিক ততদিনের ব্যবধানে আবার মাঠে ফিরছে এটিকে মোহনবাগান।

তবে মঞ্চটা আইএসএল নয়, এবার এএফসি কাপ। আর সেই অভিযানের শুরুতে সবুজ-মেরুনের সামনে বাধা আরেক ভারতীয় ক্লাব বেঙ্গালুরু এফসি। বুধবার মালের জাতীয় স্টেডিয়ামে এএফসি কাপের গ্রুপ ডি-র ম্যাচে সুনীল ছেত্রীদের বিরুদ্ধে মাঠে নামবেন রয় কৃষ্ণারা।

- Advertisement -

আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট মানেই সেখানে ক্লাবের ঐতিহ্যের সঙ্গে যোগ হয় দেশের ফুটবল আবেগ। বুধবার সেই অর্থে মর্যাদার দ্বৈরথ দুই ক্লাবের সামনে। ভারতীয় ফুটবলের মুখ হিসেবে আন্তর্জাতিক মঞ্চে মোহনবাগান, ইস্টবেঙ্গলের পাশে আলাদা পরিচিতি গড়ে তুলেছে বেঙ্গালুরু এফসি। এএফসির মঞ্চেও তাদের পারফরমেন্স যথেষ্ট নজরকাড়া। গত মরশুমে আইএসএলে ব্যর্থতার পর দলকে ঢেলে সাজিয়েছেন পার্থ জিন্দালরা। জার্মান কোচ মার্কো পেজ্জাওলি যোগ দেওয়ার পর থেকে সুনীলদের খেলায় ফিরেছে পুরোনো ঝলক। প্লে অফে স্থানীয় দল ক্লাব ঈগলসকে হারিয়ে গ্রুপ পর্বের ছাড়পত্র আদায় করেছে বেঙ্গালুরু।

তবে স্থানীয় পরিবেশ, পরিস্থিতির সঙ্গে মানিয়ে নেওয়ার ক্ষেত্রে কিছুটা হলেও অ্যাডভান্টেজ বেঙ্গালুরু। অনেক আগেই মালদ্বীপে ঘাঁটি গড়েছেন সুনীল ছেত্রীরা। প্রতিপক্ষ নিয়ে তাই যথেষ্ট সতর্ক হাবাস। বাগানের স্প্যানিশ বসের কথায়, মার্চের আইএসএলের পর ফের দল মাঠে নামছে। এই সময়ে ব্যবধানের সেরাটা তুলে ধরাই সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ। চেনা প্রতিপক্ষ বলেই কাজটা আরও কঠিন। তবে জয়ে ব্যাপারে আমরা আত্মবিশ্বাসী। কোভিড পরিস্থিতির জেরে পরিকল্পনা যে ধাক্কা খেয়েছে মানছেন হাবাস। যদিও সেই দুশ্চিন্তা সরিয়ে বেঙ্গালুরু ম্যাচে ফোকাস করছেন কৃষ্ণাদের হেডস্যর।