ফর্মে থাকা কৃষ্ণাদের জন্য বেঙ্গালুরুর সুনীল চ্যালেঞ্জ

সুস্মিতা গঙ্গোপাধ্যায়, কলকাতা : পরপর দুই ম্যাচের জয়ে স্বাভাবিকভাবেই চাঙ্গা সবুজ-মেরুন শিবির। রয় কৃষ্ণার মোহন বাঁশি সুরে বাজতে শুরু করেছে মানবীর, মার্সেলিনহোদের সঠিক সংগতে। বুদ্ধিমান আন্তোনিও লোপেজ হাবাস এই মুহূর্তে আরও জয়, আরও গোল এসব দাবির মধ্যেই যাচ্ছেন না। জানেন, এতে তাল কাটতে পারে। বরং গ্রুপ পর্যায়ে এক নম্বরে আসার দিকেই যে বাড়তি ফোকাস করতে হবে, একথা বোঝাচ্ছেন ফুটবলারদের।

উলটোদিকে বেঙ্গালুরু এফসি এখনও প্লে অফের বৃত্তের মধ্যে ঢুকতে না পারলেও কিছুটা স্বস্তি পেয়েছে টানা চার ম্যাচ অন্তত অপরাজিত থাকতে পেরে। বিশেষকরে সুনীল ছেত্রী এবং গুরপ্রীত সিং সান্ধুদের নিজেদের পুরনো ফর্মে ফেরার ইঙ্গিত দেওয়াই যে প্রতিপক্ষকে চাপে রাখতে পারে একথা জানা নৌশাদ মুসার। আর সেটাকেই তিনি কাজে লাগাতে চাইছেন। হাবাস অবশ্য এই চাপের খেলাটা আগেই বুঝে বলে দিয়েছেন, এদেশের সেরা ফুটবলারের নাম সুনীল ছেত্রী। ওই ওদের দলটার মধ্যে ভারসাম্য তৈরি করার কাজটা করে। বেঙ্গালুরু এখন একটু খারাপ সময়ের মধ্যে দিয়ে য়াচ্ছে ঠিকই কিন্তু সুনীলকে দেখেছি লড়াইটা জারি রাখার জন্য সবকিছু করতে পারে। ভারতীয় ফুটবলারদের মধ্যে পেশাদারীত্বে সেরা। তবে আমাদের অবশ্য গোটা বেঙ্গালুরু দলটার বিরুদ্ধেই খেলতে হবে, শুধু ওর বিরুদ্ধে নয়।

- Advertisement -

মরশুম শুরুর সময়ে থেকেও চোট-আঘাতে জর্জরিত মেরিনার্সরা এখন অনেকবেশি ভালো খেলছেন। যা স্বাভাবিকভাবেই বাড়তি তৃপ্তি দিচ্ছে কোচকে। হাবাসের মন্তব্য, এখন আমার দলে বিশেষকরে বিদেশিদের চোট সমস্যা অনেক বেশি। এডু গার্সিয়া চোট সারানোর চেষ্টা করছে। ডেভিড উইলিয়ামস পুরো ফিট নয়। তবে আমি খুব খুশি যে শুরুরদিকের থেকে এখন এত সমস্যা নিয়ে আমরা ভালো খেলছি। লেনি রডরিগেজকে পেয়ে তাঁর দলের সুবিধা হয়েছে বলে জানান বাগান কোচ। ডিফেন্স তাঁকে চিন্তায় রাখলেও তিরি-সন্দেশদের আড়ালই করছেন হাবাস, আমরা শেষ দুটো ম্যাচে তিনটে গোল খেয়েছি যার মধ্যে দুটো সেট পিস থেকে। একটায় তো ফাউল ছিল বলে আমার ধারনা, আর অন্যটা দূরপাল্লার শটে। তাই কাউকে দোষ দেওয়ার কিছু নেই। সঠিক পথেই চলেছে দল। তবে এই ম্যাচে কার্ড সমস্যার জন্য খেলতে পারছেন না প্রীতম কোটাল। তাঁর জায়গায় সম্ভবত সুমিত রাঠীই দলে ঢুকবেন। যদিও এসব বিষয় আগে থেকে খোলসা করতে নারাজ বাগান কোচ।

শেষ দুই ম্যাচে গোল না খাওয়াই আপাতত আশার সবথেকে বড়ো আলো বেঙ্গালুরু এফসির কাছে। নৌশাদ মুসার অবশ্য জানা, ম্যাচটা কতটা কঠিন হতে চলেছে। তাই বলেন, এই ম্যাচে নামার জন্য সবথেকে আগে দরকার সদর্থক মানসিকতা। আমরা গত দুটো ম্যাচে ক্লিন শিট রাখতে পেরেছি। ওরা মারাত্মক দল। রয় কৃষ্ণা, মানবীর সিং, ডেভিড উইলিয়ামসরা যখন তখন গোল করে দিতে পারে। তাই কিছুতেই গোল খাওয়া চলবে না আমাদের। তবে ফুটবলারদের এসব বলে মানসিকভাবে চাপেও ফেলে দিতে চাই না। তাঁর দলেও কিছু চোট সমস্যা রয়েছে। বিশেষকরে ফর্মে থাকা ক্লেটন সিলভার হালকা চোট আছে। দিমাস দেলগাদো ফিরে জৈব সুরক্ষা বলয়ে ঢুকে পড়লেও নিভৃতবাস পর্ব শেষ করতে পারেননি। আশিক কুরিয়ান চোখ এবং মুখের অস্ত্রপোচার করিয়ে সদ্য অনুশীলন শুরু করেছেন।

তবে আজ সুনীল চ্যালেঞ্জই বেঙ্গালুরুর সবথেকে বড়ো ভরসা ফর্মে থাকা এটিকে মোহনবাগানকে আটকাতে।