সুজাপুরে দিনদুপুরে ব্যাংক ডাকাতির চেষ্টা, বমাল ধরা পড়ল দুষ্কৃতী

378

কালিয়াচক: দিনদুপুরে ব্যাংক ডাকাতির চেষ্টা। এলাকাবাসীদের তৎপরতায় বমাল ধরা পড়ল এক দুষ্কৃতী। কালিয়াচকের সুজাপুর এলাকার ঘটনা। ওই দুষ্কৃতীকে পরে পুলিশের হাতে তুলে দেন এলাকাবাসীরা।

ব্যাংক সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার বেলা সাড়ে ১১টা নাগাদ সুজাপুর বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক সংলগ্ন এটিএমে টাকা রাখার জন্য কয়েকজন কর্মী ব্যাংকে আসেন। ব্য়াংকের গেটের তালা খোলার পর দ্বিতীয় দরজাটির তালা খুলতে গিয়ে তাঁরা বুঝতে পারেন যে, ভিতর থেকে দরজা বন্ধ রয়েছে। এরপরই ব্য়াংককর্মীরা হইচই শুরু করে দেন। তা শুনে আশপাশের লোকজন ব্যাংকে ছুটে আসেন। ব্যাংক ডাকাতি চলছে, এমন খবর ছড়িয়ে পড়তে শোরগোল পড়ে যায় এলাকায়। বেগতিক দেখে ব্যাংকের পিছনের গ্রিল ভেঙে পালানোর চেষ্টা করে দুষ্কৃতী। সেসময়ই হাতেনাতে ধরা পড়ে অভিযুক্ত। এরপরই তাকে ধরে বেধড়ক মারধর শুরু করেন ক্ষুব্ধ স্থানীয়রা। ঘটনাস্থলে কালিয়াচক থানার পুলিশ পৌঁছোলে তাদের হাতে অভিযুক্তকে তুলে দেন স্থানীয়রা।

- Advertisement -

এরপর ঘটানাস্থলে পৌঁছোন জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) আনিস সরকার, ডিএসপি হেডকোয়ার্টার প্রশান্ত দেবনাথ, থানার আইসি আশিস দাস। গোটা ব্যাংকে তল্লাশি শুরু করেন তাঁরা।

কালিয়াচক থানার আইসি আশিস দাস জানান, ধৃতের নাম তারিখ শেখ (৪০)। অভিযুক্তের আদি বাড়ি বাংলাদেশে। বেশ কয়েক বছর আগে সীমান্তের চোরাপথে সে ভারতে ঢুকে পড়ে। এরপর থেকে সে গাজোল থানা এলাকায় একটি বাড়ি ভাড়া নিয়ে থাকত।

পুলিশের প্রাথমিক অনুমান, ব্যাংক ম্যানেজারের অফিস ঘরের জানালার গ্রিল কেটে ঢুকে পড়ে ওই দুষ্কৃতী। সমস্ত বিষয়টি পরিষ্কারভাবে জানার পরই অন্যদের ব্যাংকে ঢোকানোর পরিকল্পনা ছিল তার। ব্যাংক যেহেতু পরপর দু’দিন ছুটি থাকবে। সেই হিসেব কষেই কাজ করছিল বলে মনে করা হচ্ছে। ব্যাংক থেকে বেশ কিছু যন্ত্রপাতি উদ্ধার হয়েছে। তার মধ্যে রয়েছে হ্যাকসো ব্লেড, ড্রিল মেশিন, গ্যাস কাটার, দুটি ব্যাগ, যন্ত্রপাতির একটি বাক্স, বেশ কিছু খাবার ও শোবার জন্য বিছানাপত্র। ধৃতের কাছ থেকে দুটি সিম কার্ড, একটি মেমোরি কার্ড, কয়েকটি বাংলাদেশি নোট পাওয়া গিয়েছে। যদিও ব্যাংকের লকার অক্ষত রয়েছে। তবে ব্যাংকের মধ্যে একটি সিসি ক্যামেরা ভেঙে দেওয়া হয়েছে বলে ব্যাংক সূত্রে জানা গিয়েছে।

জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গ্রামীণ) আনিস সরকার জানান, এক দুষ্কৃতীকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। ব্যাংক থেকে বেশ কিছু সরঞ্জাম উদ্ধার হয়েছে। এই ঘটনায় আরও কেউ জড়িত রয়েছে কিনা, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে।