ফের শিশুবাড়ি হাট দখলের চেষ্টা

255

রাঙ্গালিবাজনা: আলিপুরদুয়ার জেলার মাদারিহাট থানার অধীন শিশুবাড়ি হাটের জমি জবরদখলের চেষ্টার ঘটনায় শনিবার এলাকায় উত্তেজনা ছড়ায়। খবর পেয়ে পুলিশকর্মীদের নিয়ে ঘটনাস্থলে যান মাদারিহাট থানার ওসি টি এন লামা। হাটের জমি জবরদখল নিয়ে পুলিশের সামনে এদিন ক্ষোভ উগরে দেন স্থানীয়রা। এরপরই তৃণমূল নেতাকর্মীরা পুলিশকে সঙ্গে নিয়ে দখল হওয়া জায়গা পুনরুদ্ধারে নামেন। এতে অংশ নেন তৃণমূলের রাঙ্গালিবাজনা অঞ্চল কমিটির সভাপতি আবুল কালাম আজাদ, সহ-সভাপতি হরি দত্ত, চা বাগান তৃণমূল কংগ্রেস মজদুর ইউনিয়নের সদস্য উত্তম সাহা প্রমুখ।

আবুল কালাম আজাদ বলেন, ‘এসব আর বরদাস্ত করা হবে না। এদিন বেশ কিছু জায়গা পুনরুদ্ধারে সক্ষম হয়েছি আমরা।’ মাদারিহাট থানার ওসি টি এন লামা বলেন, ‘জবরদখল করা জায়গা থেকে খুঁটি উপড়ে ফেলা হয়েছে। হাটের জমিতে কোনও ধরনের নির্মাণ করতে গেলে জেলা পরিষদের অনুমতি নিতে হবে বলে জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।’

- Advertisement -

স্থানীয় সূত্রের খবর, এদিন হাটের একটি কুঁয়ো ভেঙে সেখানে দোকানঘর তৈরির কাজ শুরু করেন এক ব্যক্তি। এরপরই জেলা পরিষদের তরফে ফোন করা হয় মাদারিহাট থানার ওসিকে। কিন্তু পুলিশ সেখানে গেলে অনেকেই জানান তাঁদের পাট্টা রয়েছে। এখানেই প্রশ্ন তুলেছেন তৃণমূলের অঞ্চল সভাপতি আবুল কালাম আজাদ সাহেব। তিনি বলেন, ‘এদিন যাঁরা কাগজ বের করে তর্ক করছিলেন, তাঁদের বেশিরভাগই জবরদখলকারী। হাটের জমি দখলের কিছুদিন পরই পাট্টা পেয়ে যাচ্ছেন অনেকেই। এখানে জেলা পরিষদের ভারপ্রাপ্ত কর্মীর ভূমিকা নিয়ে আমাদের আপত্তি রয়েছে। কীভাবে এত তাড়াতাড়ি এত লোক জমির পাট্টা পেলেন, তা আমরা জানতে চাই। সবাই যদি হাটের জমিতে নির্মাণ করেন, তবে হাট বসবে কোথায়?’

মাদারিহাট থানার ওসি টি এন লামা বলেন, ‘আলিপুরদুয়ার জেলা পরিষদ থেকে একটি ফোন এসেছিল। কিন্তু হাটের কোন কোন জমি বেদখল হয়েছে, কারা করেছেন, তা জানিয়ে এখনও পর্যন্ত জেলা পরিষদের তরফে আমাদের কোনও চিঠি দেওয়া হয়নি।’