প্রধানের বাড়িতে ডাকাতির চেষ্টা

213

চাকুলিয়া: প্রধানের বাড়িতে ডাকাতি করার চেষ্টায় তীব্র চাঞ্চল্য ছড়াল এলাকায়। গ্রামবাসীদের তাড়ানোর প্রচেষ্টায় পালালো ডাকাত দলটি। ঘটনাটি ঘটেছে উত্তর দিনাজপুর জেলার গোয়ালপোখর থানার গতি এলাকায়।স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, সোমবার গভীর রাতে একটি ডাকাত দল গোয়ালপোখর ব্লকের গতি গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান আজিমুন নেশার বাড়িতে ডাকাতি করার জন্য দুষ্কৃতীরা ঢোকার চেষ্টা করে। সেই সময় তাদের আওয়াজ পেয়ে জেগে উঠেন পরিবারের সদস্যরা। তাঁর স্বামী ফজলু রহমান পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য। তিনি জানান, পাঁচ ছয় জনের একটি ডাকাত দল তিনি দেখতে পান। তাঁদের বাড়িতে দুষ্কৃতীরা ঢোকার চেষ্টা করছে। তাদের মধ্যে কারও হাতে রয়েছে ভারী আগ্নেয়াস্ত্র, আবার কারও হাতে লোহার রড। এই দৃশ্যটি দেখে পরিবারের লোকজন ভয়ে কাঁপতে শুরু করেন। বিপদ বুঝে তিনি গ্রামবাসীদের সঙ্গে সঙ্গে ফোন করে বিষয়টি জানানোর চেষ্টা করেন। খবর পেয়ে রাতেই গ্রামের বাসিন্দারা চিৎকার শুরু করে। ডাকাত দলটিকে ধাওয়া করে গ্রামবাসীরা। শেষ মেষে গ্রামবাসীদের তাড়া খেয়ে ডাকাত দলটি ঘটনাস্থল ছেড়ে পালিয়ে যায়।

এক স্থানীয় বাসিন্দা সাহিদ আলম বলেন, আমার ৩৫ বছর জীবনে এরকম ঘটনার সামনে পড়েনি। এটা ছিল আমার জীবনের ভয়ঙ্কর ঘটনা। ডাকাত দলটি পালানোর সময় একাধিক বার শুন্যে গুলি ছোড়ে। কিন্তু আমরাও হাল ছাড়েনি। ইট পাটকেল মেরে তাদেরকে পালটা আক্রমণ করা হয়। বিপদ বুঝে দুষ্কৃতীরা পালিয়ে যায়। তাঁর অভিযোগ, গোয়ালপোখর থানায় ফোন করা হলে দেরিতে পৌঁছায় পুলিশ। পুলিশ একটু তৎপর হলে ডাকাত দলটিকে ধরা সম্ভব হত। গতি গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান আজিমুন নেশা জানান, ঈশ্বরের কল্যাণে আমাদের গোটা পরিবার দুষ্কৃতীদের হাত থেকে রেহাই পেয়েছি। গ্রামবাসীরা খবর পেয়ে আপ্রাণ সহযোগিতা করেছেন। তা নাহলে বড়ো বিপদ ঘটার সম্ভাবনা ছিল বলে তিনি মনে করেন। তাঁর অভিযোগ ডাকাত দলটি পালানোর সময় রেখে কিছু ধারালো অস্ত্র। পুলিশ এসে উদ্ধার করে। সরজমিন খতিয়ে দেখে তদন্ত শুরু করেছে গোয়ালপোখর থানার পুলিশ।

- Advertisement -