বাবুলের নতুন স্লোগান ‘কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে, ভাইপো শ্রীঘরে’

189

আসানসোল: ‘কৃষ্ণ কৃষ্ণ হরে হরে, ভাইপো শ্রীঘরে’ রবিবার সন্ধ্যায় আসানসোলের সিটি বাসস্ট্যান্ড সংলগ্ন গির্জা মোড়ের কাছে আয়োজিত একটি সভায় এমনই স্লোগান দেন আসানসোলের বিজেপি সাংসদ তথা কেন্দ্রীয় প্রতিমন্ত্রী বাবুল সুপ্রিয়। সভায় উপস্থিত ছিলেন বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। তিনি এদিনের সভায় রাজ্যের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস, মুখ্যমন্ত্রী ও ভাইপোকে তীব্র আক্রমণ করেন।

শুভেন্দু বলেন, ‘ভাইপো বলেছেন, হাসতে হাসতে ফাঁসির মঞ্চে যাব। আমরা বলছি, তাঁকে ফাঁসিতে যেতে হবে না। আমরা চাই, আইন অনুযায়ী তাঁর ফাঁসি হোক। আমি বাংলার সাধারণ মানুষ হিসেবে সিবিআইয়ের কাছে দাবি করছি, নোটিশ দিলে শুধু হবে না। ব্যবস্থা নিতে হবে। ২০১৪ সাল থেকে ২০২০ সাল পর্যন্ত কত টাকা জমা পড়েছে, তা দেখা হোক।‘

- Advertisement -

শুভেন্দু আরও জানান, কলকাতা লন্ডন হয়নি। কিন্তু তৃণমূল কংগ্রেস থাকলে বাংলা কাশ্মীর হয়ে যাবে। বাংলার বিশ্বকবি রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর থেকে শুরু করে বিশ্ব বরেণ্য অনেক মনীষী আছেন। অথচ তৃণমূল কংগ্রেস প্রচার করছে, বাংলার গর্ব মমতা। শনিবার থেকে আবার প্রচার করা হচ্ছে, বাংলার মেয়েকে চাই। মনে হচ্ছে বাংলায় আর কোনও মেয়ে নেই।

তাঁর কটাক্ষ, ‘সবকিছু লুঠপাট করে নিয়ে এখন ৫ টাকায় ডিম ভাত খাওয়াচ্ছে। আপনারা কী চান? ৫ টাকায় ডিম ভাত, না চাকরি?’ শুভেন্দু এদিন ফের মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হুঁশিয়ারি দিয়ে বলেন, ‘নন্দীগ্রাম থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হারাব। তবে ওঁনাকে এক জায়গায় দাঁড়াতে হবে। দু জায়গায় দাঁড়াতে দেব না।‘

সভায় ব্যারাকপুরের সাংসদ অর্জুন সিং বলেন, ‘জয় শ্রীরাম ধ্বনি শুনে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গাড়ি থেকে নেমে পড়ছেন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সভায় বক্তব্যই রাখছেন না। বহিরাগত বলতে বলতে তিনি দেশের প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্র মন্ত্রীকেও বহিরাগত বলছেন।‘

তাঁরা ছাড়াও এদিনের সভায় বক্তব্য রাখেন বিজেপির রাজ্য মহিলা মোর্চার সভানেত্রী অগ্নিমিত্রা পাল, জেলা সভাপতি লক্ষণ ঘোড়ুই, জেলা যুব মোর্চার সভাপতি অরিজিৎ রায়, যুব মোর্চার জেলা পর্যবেক্ষক সৌরভ শিকদার। এদিনের সভায় শুভেন্দু অধিকারীর হাত থেকে পতাকা নিয়ে বিজেপিতে যোগদান করেন আসানসোল পুরনিগমের তৃণমূল কংগ্রেসের দুই বিদায়ী কাউন্সিলর অভিজিৎ আচার্য ও ইন্দ্রাণী আচার্য।