টিকিটের আশায় মুকুলের দরবারে রাজ্যের এই দাপুটে মন্ত্রী

156

বালুরঘাট: ভোটের টিকিট না পেয়ে রবিবারই জেলার নেতাদের বিরুদ্ধে ‘বিস্ফোরক’ মন্তব্য করেছিলেন তৃণমূলের আদিবাসী নেতা তথা উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদা। এরপর থেকেই জোর জল্পনা শুরু হয়ে যায় রাজনৈতিক মহলে। এবার কি তাহলে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিতে চলেছেন বাচ্চু, তা নিয়েই চলে চর্চা। ‘বিস্ফোরক’ মন্তব্যের ২৪ ঘণ্টা পেরোতে না পেরোতেই টিকিটের আশায় বিজেপির সর্বভারতীয় সহ সভাপতি মুকুল রায়ের সঙ্গে দেখা করলেন বিক্ষুব্ধ এই তৃণমূল নেতা। সোমবার মুকুল রায়ের বাড়িতে যান বাচ্চু। আর এই সাক্ষাৎই বাচ্চুর বিজেপিতে যোগ দেওয়ার জল্পনা আরও উস্কে দেয়। কিন্তু অবশেষে সেখান থেকেও হতাশ হয়ে ফিরতে হয় বাচ্চুকে।

টিকিট না পাওয়ায় অভিমানের কথা মুকুলবাবুর কাছে খুলে বলেন বাচ্চু। তবে তাঁকে নিজেদের দলে যোগ দেওয়ার কথাই বললেনি মুকুলবাবু। আর এতেই কিছুটা হতাশ হয়ে পড়েন তিনি। এ প্রসঙ্গে বাচ্চু অবশ্য বলেন, ‘এখন বিজেপিতে যোগ দেওয়ার প্রচুর লোক। তারা কি আর এখন আমাদের নিজেদের দলে যোগ দিতে সাধবেন?’

- Advertisement -

মুকুল রায়ের বাড়ি থেকে বেরিয়ে ফোনে বাচ্চু হাঁসদা আক্ষেপ করে বলেন, ‘আমার প্রয়োজন দলে নেই। তাইতো টিকিট না দিলেও, একবার অন্তত রাজ্য নেতাদের কেউই ফোন করে দলের কাজ চালিয়ে যাওয়ার বিষয়ে আশ্বস্ত করেননি। অপমানিত বোধ করছিলাম। তাই এদিন মুকুলদার সঙ্গে দেখা করতে গিয়েছিলাম। ওঁনার সঙ্গে পাঁচ মিনিট কথা হয়েছে। ওঁনাকে আমার অভিমানের কথা জানিয়েছি। উনি সব শুনেছেন। কিন্তু আমাকে দলে যোগ দিতে বলেননি। তাই আমিও বিজেপিতে এখন যোগ দিচ্ছি না। আপাতত তৃণমূলেই রয়েছি। সাধারণ ভোটার হিসেবেই থাকব।’

প্রসঙ্গত, তপন বিধানসভার দু’বারের বিধায়ক তথা উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদাকে এবারে টিকিট দেয়নি দল। তাঁর বদলে এবারে টিকিট পেয়েছেন বালুরঘাট পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি কল্পনা কিস্কু। আর এতেই অপমানিত বাচ্চু বিজেপিতে যোগ দিতে পারেন বলে জল্পনা তৈরি হয়েছিল। গতকালই তিনি বিস্ফোরক অভিযোগ করে বলেন, ‘জেলা নেতারা যাঁরা ভোটে দাঁড়িয়েছেন, তাঁরা মন্ত্রী হওয়ার পথ প্রশস্ত করতেই কাঁটা সরিয়ে দিয়েছেন।’

বালুরঘাটের বিজেপি সাংসদ সুকান্ত মজুমদার বলেন, ‘মুকুলদার সঙ্গে কি কথা হয়েছে, তা জানিনা। তবে যে কেউই বিজেপিতে আসতে চায়, তাহলে বিনা শর্তে আসতেই পারেন। কর্মী হিসেবে যদি কেউ কাজ করতে চান, তাহলে আসতেই পারেন।’

তৃণমূল জেলা সভাপতি গৌতম দাস বলেন, ‘দল তাঁকে অনেক কিছু দিয়েছে। এখন দলকেই তাঁর দেওয়ার সময়। কিন্তু এই সময় যদি বাচ্চুবাবু বিজেপিতে যান, তাহলে আমাদের কিছু করার নেই। মানুষই বিচার করবেন।’