জল কমতেই চরতোর্ষার ভাঙা ডাইভারশন দিয়ে ঝুঁকির যাতায়াত

180

ফালাকাটা : জল কমতেই বুধবার ফালাকাটা-সোনাপুর জাতীয় সড়কের চরতোর্ষা ডাইভারশনের কঙ্কালসার চেহারা বেরিয়ে এসেছে। ডাইভারশনের দুদিকের অ্যাপ্রোচ রাস্তা ভেঙে গিয়েছে। ডাইভারশনের মাঝখানেও বড় বড় গর্ত তৈরি হয়েছে। বড় বড় বোল্ডার যেখানে-সেখানে পড়ে রয়েছে। ফলে বুধবারও ফালাকাটা-আলিপুরদুয়ার সড়কপথে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়নি। তবে ভাঙাচোরা ডাইভারশনের উপর দিয়ে বিপজ্জনকভাবে মোটরবাইক, সাইকেল ও কিছু ছোট গাড়ি চলাচল করছে। এলাকাবাসী দ্রুত ডাইভারশন সংস্কারের দাবি তুলেছেন। ফালাকাটার বিডিও সুপ্রতীক মজুমদার বলেন, বিষয়টি জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি। পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলেই ডাইভারশন সারাইয়ের কাজ শুরু হবে।

সোমবার রাতের প্রবল বৃষ্টিতে জলের তোড়ে ভেঙে যায় চরতোর্ষা ডাইভারশন। চরতোর্ষার কাঠের সেতুটি ২০১৭ সালের বন্যায় ভাঙলেও নতুন সেতুর কাজ শুরু হয়নি। হিউম পাইপ বসানো ডাইভারশনটি ২০১৮ ও ২০১৯ সালের বর্ষাতেও বারবার ভেঙে যায়। এবারও বর্ষা শুরু হতেই ডাইভারশন ভেঙে যাওয়ায় ভোগান্তি শুরু হয়েছে। বুড়িতোর্ষা ও সনজয় নদীর দুর্বল কাঠের সেতুর পাশেও দুটি ডাইভারশন তৈরি করে জাতীয় সড়ক কর্তৃপক্ষ। বৃষ্টিতে এই দুটি ডাইভারশনেরও ক্ষতি হয়েছে। সনজয় নদীর উপরে থাকা কাঠের সেতুরও একাংশ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। তাই বড় কোনও যানবাহন এই রাস্তা দিয়ে এখন চলাচল করতে পারছে না। মঙ্গলবার রাতে সেরকম বৃষ্টি না হওয়ায় বুধবার ডাইভারশনগুলির কঙ্কালসার চেহারা ফুটে ওঠে। শিশাগোড়, কালীপুর, বংশীধরপুর, মেজবিল, পলাশবাড়ি এলাকার বাসিন্দাদের কাজের সূত্রে রোজ ফালাকাটা যেতেই হয়। তাই জল কমার পর এদিন ঝুঁকি নিয়ে ওই ডাইভারশনের উপর দিয়ে যাতায়াত করেন তাঁরা। ফালাকাটার সুভাষপল্লির বাসিন্দা সুব্রত সরকার কালীপুর পোস্ট অফিসের পোস্ট মাস্টার। তাঁকে মোটরবাইকে চেপে রোজ কালীপুরে যাতায়াত করতে হয়। তিনি বলেন, মঙ্গলবার পোস্ট অফিসে যেতে পারিনি। এদিন খুব কষ্টে ডাইভারশন পার হয়েছি। কয়েক বছর ধরে এই ভোগান্তি চলছে। এতদিনেও কেন বিকল্প সেতু তৈরি করা হল না, সেই প্রশ্ন তুলেছেন বাসিন্দারা। শিশাগোড়ের ভবেশ বালো বলেন, বিকল্প সেতু তৈরি না হওয়ায় এই ভোগান্তি কবে শেষ হবে বলা মুশকিল। তবে মহাসড়ক নির্মাণকারী সংস্থার আলিপুরদুয়ার জেলার প্রশাসনিক প্রধান মেহেবুব রহমান বলেন, জল কমে যাওয়ায় এদিন কিছু গর্ত বন্ধ করা হয়েছে। বাইরে থেকে বোল্ডার ও অন্য সামগ্রী আনা হচ্ছে। পরিস্থিতি একটু স্বাভাবিক হলেই দ্রুত এই ডাইভারশন ও সনজয় সেতু মেরামত করা হবে।

- Advertisement -