দিলীপকুমার তালুকদার, বুনিয়াদপুর : দীর্ঘদিন ধরে দাবি জানিয়েছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। কিন্তু বংশীহারী ব্লকের মহাবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের আঁধারমানিক গ্রামের মাটির রাস্তাটি এখনও পাকা হয়নি। ফলে কাঁচা রাস্তা দিয়েই চলাচল করতে হচ্ছে সাধারণ মানুষকে। যদিও প্রশাসনের তরফে আশ্বাস দেওয়া হয়েছে দ্রুত রাস্তাটি পাকা করা হবে। চকমাদুল্লা রেলগেট পার হয়ে আমসুপারিতলা নামক জনবসতিটি বর্তমানে বুনিয়াদপুর পুরসভার ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের অন্তর্ভুক্ত। পুরসভার অন্তর্বর্তী এলাকার রাস্তাটি পাকা হয়েছে। বাকি অংশ ভবিষ্যতে পাকা করা হবে বলে জানিয়েছেন কাউন্সিলার সঞ্জিৎ সরকার। কিন্তু আমসুপারিতলা জনবসতির পর থেকে শুরু করে আঁধারমানিক গ্রামের বেহাল কাঁচা রাস্তাটি পাকা করতে এখনও উদ্যোগী হয়নি স্থানীয পঞ্চায়েত বা ব্লক প্রশাসন।

সগেন পাহান, বিনয় পাহান, অনিতা হেমব্রম সহ আরও অনেকে বলেন, মহাবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েত বা বংশীহারী পঞ্চায়েত সমিতি প্রচুর কাঁচা রাস্তা পাকা করেছে। কিন্তু একাধিকবার আন্দোলন করা সত্ত্বেও আদিবাসী অধ্যুষিত আঁধারমানিক গ্রামের রাস্তাটি পাকা করা হয়নি। ফলে আমরা হাঁটাচলার ক্ষেত্রে ব্যাপক সমস্যার মুখে পড়েছি। গত পঞ্চায়েত ভোটের আগে শাসকদলের নেতা-কর্মীরা এলাকায় ভোট চাইতে এসে রাস্তাটি পাকা করার আশ্বাস দিয়েছিলেন। প্রার্থী জিতে বর্তমানে পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি হয়েছেন। কিন্তু রাস্তাটির হাল ফেরাতে তিনি উদ্যোগী হননি। রাস্তার প্রকৃত চেহারা সামনে আসে বৃষ্টি হলে। জলকাদায় রাস্তায় পা দেওয়া যায় না। তবুও পরিস্থিতির চাপে পড়েই স্কুল-কলেজের পড়ুয়া থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষকে চড়ান্ত দুর্ভোগের মধ্যে দিয়ে চলাচল করতে হয়।

- Advertisement -

তাঁরা আরও বলেন, খানাখন্দে ভরা রাস্তায় অনেক সময় গাড়িও ঢোকে না। গ্রামের কোনো রোগীকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে হলে খাটিয়ায় চাপিয়ে রেলগেট পার করতে হয়। তারপরেই পাকা রাস্তায় এনে অ্যাম্বুলেন্সে তোলা সম্ভব হয়। এমনকি শুধু খারাপ রাস্তার কারণেই এই গ্রামে বাইরের কেউ বৈবাহিক সম্পর্ক স্থাপন করতে চান না। এর আগে রাস্তা সংস্কারের দাবিতে ব্লক প্রশাসনের অফিসে ডেপুটেশন দেওয়া হয়েছিল। কিন্তু প্রতিশ্রুতি মিললেও কোনো কাজ হয়নি। আমরা শ্রমিক মানুষ। দিনমজুরি করে সংসার চালাই। আমাদের কোনো বড়ো দাবি নেই। দাবির মধ্যে রয়েছে শুধুমাত্র আধ কিলোমিটার পাকা রাস্তা। আর কিছুদিন অপেক্ষা করব। তারপরেও রাস্তা পাকা না হলে চকসাদুল্লাপুরে জাতীয় সড়ক অবরোধ করব।

এই প্রসঙ্গে বংশীহারী পঞ্চায়েত সমিতির সহসভাপতি গণেশ প্রসাদ বলেন, আঁধারমানিক গ্রামের রাস্তাটি বর্তমানে সত্যিই চলাচলের অযোগ্য। পঞ্চায়েত সমিতি শীঘ্রই রাস্তাটি পাকা করতে উদ্যোগী হবে।