দোকান খোলা থাকলেও বিক্রি নেই, চিন্তায় মিষ্টি ব্যবসায়ীরা

110

মেটেলি: করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের জেরে কার্যত লকডাউন ঘোষণা করেছে রাজ্য সরকার। সকাল ৭টা থেকে ১০টা পর্যন্ত গালামাল, সবজি, মাছ, মাংস সহ অন্যান্য দোকানপাট খোলা থাকছে। সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত খোলা থাকছে মিষ্টির দোকানগুলো। ওই সময়ের মধ্যে মিষ্টির দোকান খোলা থাকলেও ব্যবসা ভালো হচ্ছে না দোকানদারদের। ওই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে দোকান খোলা রেখে বসে থাকতে হচ্ছে তাঁদের। দিনভর হাতে গোনা কয়েকজন ক্রেতা আসছেন। এভাবে চলতে থাকলে কি করে দোকান চালাবে, তা নিয়েই চিন্তিত মিষ্টি ব্যবসায়ীরা।

দুধ, ছানার টাকা তো দূরের কথা কারিগরদের মজুরির টাকাও উঠছে না। তার ওপর আছে বিদ্যুৎ ও রান্নার গ্যাসের খরচ। বর্তমান এমনই অবস্থা চালসা, মেটেলি, বাতাবাড়ি, ধুপঝোরা, মঙ্গলবাড়ি বাজারের মিষ্টির দোকানগুলোর। ব্যবসায়ীদের কথায়, যে সময় বাজারে ভিড় থাকে সেই সময় দোকান বন্ধ। করোনার ভয়ে এমনিতেই এখন মানুষ বাজারে আসছে না। বাতাবাড়ি ফার্ম বাজারের মিষ্টির দোকানদার সুভাষ বর্মন জানান, দিনভর শুধু দোকান খুলে বসে থাকেন। ক্রেতার দেখা পাওয়া যায় না। এভাবে চলতে থাকলে সংসার চলবে কি করে, তা নিয়েই প্রশ্ন উঠছে। মিষ্টির দুধ, ছানার টাকাই ওঠে না। সকালে দোকান খোলা থাকলে হয়তো কিছুটা ব্যবসা হত। পরিস্থিতি কবে স্বাভাবিক হবে, এখন সেদিকেই তাকিয়ে মিষ্টি ব্যবসায়ীরা।

- Advertisement -