শোভনের গ্রেপ্তারিতে পাশে রত্না, কেন্দ্রের বিরুদ্ধে তোপ বৈশাখীর

50

কলকাতা: শোভন চট্টোপাধ্যায়কে তাঁর ঘরে ঢুকে তুলে নিয়ে গেল সিবিআই। সেই বর্ণনা তখন সংবাদমাধ্যমকে জানাচ্ছিলেন তাঁর বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়। ততক্ষণে স্বামীর বিপদে পাশে দাঁড়াতে নিজাম প্যালেসে ছুটে গিয়েছেন স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায়। এদিন শোভনের গ্রেপ্তারির খবর পেয়ে নিজাম প্যালেসে সিবিআই দপ্তরে যান রত্না। ১৫ তলায় তখন রাখা হয়েছে গ্রেপ্তার হওয়া নেতা-মন্ত্রীদের। সাংবাদিকদের শুধু তিনি বলেন, ‘বেশি কিছু বলতে চাই না। আইনজীবীদের সঙ্গে কথা বলব। তাঁদের পরামর্শ অনুযায়ী পদক্ষেপ করা হবে।‘ তাহলে কী সিবিআইয়ের গ্রেপ্তারি আবার সংসার জুড়ে দেবে? সেই প্রশ্নের জবাব খোঁজার জন্য রত্নাকে আর পায়নি সংবাদমাধ্যম। তাঁর ঠিক করা আইনজীবীকে দিয়ে শোভন সওয়াল করিয়েছেন কিনা জানা যায়নি তাও। তবে স্বামীর গ্রেপ্তারিতে যে আজও তিনি যথেষ্ট বিচলিত, তা বুঝিয়ে দিয়েছেন বেহালা পূর্বের তৃণমূল বিধায়ক রত্না চট্টোপাধ্যায়।

কেন্দ্রীয় বাহিনীর ঝোড়ো অপারেশনে বৈশাখী প্রথমে ভেবেছিলেন বাড়িতে ডাকাত পড়েছে। তিনি বলেন, ‘ভোরে সিবিআইয়ের দল আমার ঘরে ঢোকে। ওদের সঙ্গে কোনও মহিলা অফিসার ছিল না। আমি আইনি ব্যবস্থা নেব। সিবিআই যখন-তখন গ্রেপ্তার করতে পারে, এই দম্ভ ভাঙার দিন চলে এসেছে।‘ বিজেপির সঙ্গে সম্পর্ক আগেই ছিন্ন করেছিলেন। এবার তৃণমূলের সঙ্গে সম্পর্ক ভালো করার প্রবণতা লক্ষ করা গেল বৈশাখীর কথায়। কেন্দ্রীয় সরকারকে তোপ দাগার পাশাপাশি মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ে ভূয়সী প্রশংসা করেছেন তিনি। বৈশাখী বলেন, ‘ভারতবর্ষের সরকার করোনার চেয়ে ভয়ংকর। আজ গণতন্ত্রের জন্য একটা কালো দিন। সমাজের অন্যতম সম্মানীয় ব্যক্তিদের যেভাবে সিবিআই ধরে নিয়ে গিয়েছে, তা দেশের পক্ষে লজ্জার। তবে মুখ্যমন্ত্রী দেখিয়ে দিলেন যে উনি ক্যাপ্টেন। উনি সকলের মুখ্যমন্ত্রী। করোনা পরিস্থিতিতে যাঁর ওপরে সবচেয়ে বেশি দায়িত্ব সেই ফিরহাদ হাকিমকেও সকাল থেকে বিনা কারণে ধরে নিয়ে গিয়েছে সিবিআই। আজ পরিষেবা না পেয়ে যে কজনের প্রাণ যাবে সেই মৃত্যুর জন্য ওরাই দায়ী থাকবে।‘

- Advertisement -