পুনর্ভবার জলে প্লাবিত বামনগোলার বিস্তীর্ণ এলাকা

256

স্বপনকুমার চক্রবর্তী, বামনগোলা: পুনর্ভবার জলে প্লাবিত হয়েছে বামনগোলার বিস্তীর্ণ এলাকা। তৈরি হয়েছে বন্যা পরিস্থিতি।

মঙ্গলবার বাঁশিপাড়া এলাকায় বাঁধ ভাঙা জলে প্লাবিত এলাকা ও কৃষি জমি পরিদর্শন করেন উত্তর মালদার সাংসদ খগেন মুর্মু। তিনি জানান, আমন চাষের জমি সহ বামনগোলার কয়েক হাজার বিঘা কৃষি জমি এখন জলের তলায়। কোটি কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে কৃষকদের। অবিলম্বে সংশ্লিষ্ট দপ্তরকে সরেজমিনে সমস্ত বিষয় খতিয়ে দেখে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা তৈরি করার কথা বলা হয়েছে। পাশাপাশি ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের জন্য ক্ষতিপূরণের দাবি জানানো হয়েছে। এছাড়াও বেশ কিছু এলাকায় বাড়িতে জল ঢুকে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। সেই সমস্ত ক্ষতিগ্রস্ত মানুষদেরও সরকারি ক্ষতিপূরণ দেওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি। এদিন তিনি বামনগোলার বাঁশিপাড়া, শুকদেবপুর, গাড়াপাড়া, আইসানি, নবাবনগর, কুপাদহ, ভোলামাসনা, গোয়াপাড়া, বাদিয়াপাড়া, সাপমারি, ময়নাফলা সহ বিভিন্ন এলাকা কোথাও গাড়িতে, কোথাও হেঁটে, কোথাও নৌকা করে পরিদর্শন করেন।

- Advertisement -

প্রসঙ্গত, রবিবার গভীর রাতে বাঁশিপাড়া এলাকায় পুনর্ভবার বাঁধ ভেঙে প্লাবিত হয়েছে বামনগোলার বিস্তীর্ণ এলাকা। সংশ্লিষ্ট এলাকায় প্রায় ১০০ মিটার বাঁধ ভেঙে যাওয়ায় বন্যা পরিস্থিতির আশঙ্কায় উদ্বেগ ছড়িয়েছে এলাকায়। রবিবার রাতের পর সোমবার সারাদিন বাঁধের ভাঙা অংশ দিয়ে হু হু করে জল ঢুকেছে। এদিনও জলস্তর বৃদ্ধির সঙ্গে সঙ্গে সারাদিন ধরে ভাঙা বাঁধের অংশ দিয়ে পুনর্ভবার জল ঢোকা অব্যাহত রয়েছে। ঘুরপথে জল ঢুকে জলবন্দি হওয়ার আশঙ্কায় ভুগছেন বেশকিছু গ্রামের মানুষ।

উল্লেখ্য, গত কয়েকদিন ধরে পাহাড় সহ উত্তরবঙ্গজুড়ে লাগাতার বৃষ্টি হয়েছে। সেই বৃষ্টির জল নদীর ঢাল বেয়ে নেমে এসেছিল উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিণ দিনাজপুর ও মালদার নদীগুলিতে। ফলে কয়েকদিন ধরেই ফুঁসছে দুই দিনাজপুর ও মালদার একাধিক নদী। সেচ দপ্তরের মতে এভাবে আপার ক্যাচমেন্টের জল প্রবল গতিতে নেমে আসায় পুনর্ভবা নদী তীরবর্তী বাঁশিপাড়া এলাকার রাস্তা ভেঙে যায়। যে রাস্তা নদী থেকে কিছুটা উঁচু, অনেকে সেটাকেই বাঁধ বলেন। সেই ভাঙা অংশ দিয়ে পুনর্ভবার জল ঢুকেই প্লাবিত করেছে বামনগোলার বিস্তীর্ণ এলাকা। ফলে বাঁশিপাড়া, আইসানি, নবাবনগর, ভোলামাসনা, গাড়াপাড়া, কুপাদহ সহ বিভিন্ন এলাকায় কয়েক হাজার বিঘা কৃষি জমি জলের তলায় চলে গিয়েছে। পাশাপাশি ঘুরপথে জল ঢুকে এদিন বাড়িতে জল ঢুকেছে সাপমারি, ময়নাফলা, বাদিয়াপাড়া, গোয়াপাড়া সহ বিভিন্ন এলাকায়। কার্যত জলবন্দি বেশ কিছু এলাকা। সকলেই এখন উদ্বিগ্ন। যদি এদিনের মতো জল বাড়তেই থাকে তাহলে নতুন করে প্লাবিত হয়ে অনেক ঘরবাড়ি জলবন্দি হয়ে পড়বে। সেই আশঙ্কাতেই সংশ্লিষ্ট এলাকার মানুষজন রাত জেগে নজর রাখছেন জলের গতি ও জলস্তর বৃদ্ধির দিকে। কিন্তু বিপুল পরিমাণে কৃষিক্ষেত্রে ক্ষয়ক্ষতির এবং জলে ক্ষতিগ্রস্ত বাড়ির ক্ষয়ক্ষতির দিকে সরকারি নজর পড়বে কিনা জল নিয়ে উদ্বেগের পাশাপাশি সেটাই এখন চর্চার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে ক্ষতিগ্রস্তদের মধ্যে।