প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক

578
ফাইল ছবি

ঋদ্ধিমান চৌধুরি, ঢাকা: ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে একদিনের জাতীয় শোক পালিত হল বাংলাদেশে। এদিন জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়। ভারতীয় হাইকমিশনে রাখা শোক বইতে স্বাক্ষর করেন বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন। তিনি উল্লেখ করেন, ‘ভারতরত্ন তথা ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে বাংলাদেশ একজন অকৃত্রিম বন্ধুকে হারাল। তিনি আমাদের গর্ব এবং বাঙালি জাতি তাঁর কাছে ঋণী।’

ড. মোমেন বলেন, ‘আমার সৌভাগ্য হয়েছিল ১৯৭৩ সালে তাঁর সঙ্গে পরিচিত হওয়ার। আমাদের স্বাধীনতা আন্দোলন থেকে শুরু করে সব সময় তিনি বাঙালির মঙ্গল ও কল্যাণে নিবেদিত ছিলেন।’ বাংলাদেশ সরকার ও জনগণের পক্ষ থেকে প্রণব মুখোপাধ্যায়ের প্রতি শ্রদ্ধা জ্ঞাপন করেন ড. মোমেন। এছাড়া তিনি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের পরিবার ও ভারতের জনগণের প্রতি গভীর সমবেদনা জ্ঞাপন করেন। শোক বইয়ে স্বাক্ষরের সময় ভারতের হাইকমিশনার রীভা গঙ্গোপাধ্যায় উপস্থিত ছিলেন।

- Advertisement -

বুধবার ভারতের প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের মৃত্যুতে বাংলাদেশে রাষ্ট্রীয় শোক পালন করা হয়েছে। এই  উপলক্ষ্যে এদিন সকল সরকারি, বেসরকারি ও স্বায়ত্ত্বশাসিত প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়েছে। এছাড়া শিক্ষা প্রতিষ্ঠান, সরকারি ও বেসরকারি ভবন এবং বিদেশে থাকা বাংলাদেশের মিশনগুলিতেও জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়। ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বিশেষ প্রার্থনারও ব্যবস্থা করা হয়। ভারতের ১৩ তম রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়কে ২০১৩ সালে বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননা দেওয়া হয়েছিল।

উল্লেখ্য, তিন সপ্তাহ আগে দিল্লির আর্মি রেফারেল হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়। সোমবার শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। সোমবার বিকেলে প্রণব-পুত্র অভিজিৎ মুখোপাধ্যায় টুইট করে এখবর জানান।

মঙ্গলবার পূর্ণ রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় প্রাক্তন রাষ্ট্রপতি প্রণব মুখোপাধ্যায়ের শেষকৃত্য সম্পন্ন হয়েছে। মাস্ক পরে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রেখে তাঁকে শেষ বিদায় জানান সকলে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ, উপরাষ্ট্রপতি বেঙ্কাইয়া নাইডু প্রমুখ প্রাক্তন রাষ্ট্রপতিকে শেষ শ্রদ্ধা জানান।

১৯৩৫ সালের ১১ ডিসেম্বর বীরভূম জেলার কীর্ণাহার লাগোয়া মিরিটি গ্রামে প্রণববাবু জন্মগ্রহণ করেন। ১৯৬৬ সালে সক্রিয় রাজনীতিতে প্রবেশ করেন তিনি। ১৯৬৯-এ বাংলা কংগ্রেসের টিকিটে রাজ্যসভার সদস্য হন। ১৯৭৫ সালে কংগ্রেসের টিকিটে দ্বিতীয়বার রাজ্যসভার সদস্য হন প্রণববাবু। ১৯৭৩ সালে তিনি শিল্প প্রতিমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন। ১৯৮২ সালে কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রীর দায়িত্ব পান।

মনমোহন সিংয়ের মন্ত্রীসভায় ২০০৪ থেকে ২০০৬ অবধি প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও ২০০৬ থেকে ২০০৯ পর্যন্ত বিদেশমন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন প্রণব মুখোপাধ্যায়। ২০০৮ সালে পদ্মবিভূষণ সম্মান পান তিনি। ২০১২ সালে সক্রিয় রাজনীতি থেকে অবসর নেন। ২০১২ সালের ২৫ জুলাই প্রথম বাঙালি হিসাবে ভারতের রাষ্ট্রপতি হন প্রণববাবু। ২০১৭ সাল পর্যন্ত এই দায়িত্ব পালন করেন তিনি। ২০১৯ সালে কেন্দ্রীয় সরকার তাঁকে ভারতরত্নে ভূষিত করে।