ব্যাংক জালিয়াতির তদন্তে মিলছে চাঞ্চল্যকর তথ্য, চোখ কপালে তদন্তকারীদের

192

খড়িবাড়ি: খড়িবাড়িতে জালিয়াতি কাণ্ডের ঘটনায় একের পর এক নতুন তথ্য সামনে আসতে শুরু করেছে। এক্ষেত্রে কোটি কোটি টাকা ব্যাংকে লেনদেন হয়েছে বলে আশঙ্কা করছেন তদন্তকারীরা। প্রশাসনের পক্ষ থেকে সাধারণ মানুষকে সতর্ক করতে গ্রামে গ্রামে চলছে মাইকে প্রচার। পাশাপাশি মূল অভিযুক্ত মাধব সিংহকে গ্রেপ্তারের পর রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। প্রতারকরা বুড়াগঞ্জের প্রত্যন্ত এলাকার মানুষের কাছ থেকে আধার কার্ড, ভোটার কার্ড ও প্যানকার্ড সংগ্রহ করত। এরপর মূল অভিযুক্তের বাড়িতে ল্যাপটপের সঙ্গে যুক্ত ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানারে সাধারণ মানুষের আঙুলের ছাপ নিয়ে নিত। এভাবে তাঁদের না জানিয়েই খোলা হত ব্যাংকের অ্যাকাউন্ট। দরিদ্র কৃষকদের বলা হত কৃষি ক্ষেত্রে বিভিন্ন সরকারি অনুদানের টাকা দেওয়া হবে। ব্যাংকের কর্মীদের সঙ্গে যোগসাজশ করে এটিএম কার্ড হাতিয়ে নেওয়া হত। এরপর কৃষকদের প্রাপ্য টাকা অ্যাকাউন্টে ঢুকতেই তা হাতিয়ে নেওয়া হত।

এই ঘটনা জানাজানি হতেই সকাল থেকে বুড়াগঞ্জ গ্রাম পঞ্চায়েতের বিভিন্ন গ্রামে অবস্থিত ব্যাংকের একাধিক গ্রাহক পরিষেবা কেন্দ্রে আতঙ্কিত সাধারণ মানুষকে ভিড় করতে দেখা যায়। যাঁরা প্রতারকদের নথি দিয়েছিলেন তাঁদের অনেকেই নিজের অ্যাকাউন্টে ৫০ হাজার থেকে ৪ লক্ষ টাকা পর্যন্ত টাকা পর্যন্ত লেনদেন করা হয়েছে বলে জানতে পেরেছেন। জনৈক শম্ভু সিংহের দাবি, তাঁর এবং তাঁর বউয়ের অ্যাকাউন্ট থেকে মোট এক লক্ষ টাকা তুলে নেয় প্রতারকরা। দেওয়ানভিটার কৃষক বিষ্ণু সিংহের অ্যাকাউন্ট থেকে একইভাবে ৮০ হাজার টাকা তুলে নেয় প্রতারকরা। এদিকে মূল অভিযুক্ত মাধব সিংহকে আদালত থেকে গতকাল রিমান্ডে নিয়ে তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ। বিভিন্ন দপ্তরে বেশ কয়েকজন কর্মীসহ তিনটি ব্যাংকের কর্মীদের এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত থাকার ইঙ্গিত মিলেছে। বেশকিছু নথিও উদ্ধার করেছে পুলিশ।

- Advertisement -