মেসির জোড়া রেকর্ডের দিনে আটকে গেল বার্সা

বার্সেলোনা : বার্সেলোনার জার্সিতে লা লিগায় সবচেয়ে বেশি ম্যাচ খেলার রেকর্ড করলেন লিওনেল মেসি। ভাঙলেন পুরোনো সতীর্থ জাভির ৫০৫ ম্যাচ খেলার রেকর্ড। রবিবার পেনাল্টি থেকে গোল করে বার্সাকে এগিয়ে দিয়েঠিলেন মেসি। এদিন স্কোরবুকে নাম তুলে লিগে ৩৮ ক্লাবের বিরুদ্ধে গোল করার বিরল নজির গড়লেন। যদিও শেষদিকে পেনাল্টি থেকে সমতা ফেরান কাডিজের অ্যালেক্স ফার্নান্ডেজ। শেষ পর্যন্ত ১-১ গোলে ড্র করেই মাঠ ছাড়ল বার্সা।

তবে সার্জিও র্যামোস, করিম বেঞ্জেমা, এডেন হ্যাজার্ড, মার্সেলো, ড্যানি কর্বাহলদের ছাড়াই অ্যাওয়ে ম্যাচে রিয়াল ভালাদোলিদকে ১-০ গোলে হারাল রিয়াল মাদ্রিদ। একে চোট, তার উপর সামনেই আটালান্টার বিরুদ্ধে চ্যাম্পিয়ন্স লিগের গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচ রয়েছে। এমন অবস্থায় লা লিগার ম্যাচে রিয়াল ভালাদোলিদের বিরুদ্ধে কাদের খেলাবেন তা বুঝে পাচ্ছিলেন না রিয়াল মাদ্রিদের কোচ জিনেদিন জিদান। শেষপর্যন্ত ডাক পড়ল অ্যাকাডেমির ছেলেদের। শনিবার রাতে রিয়ালের রিজার্ভ বেঞ্চে গোলরক্ষক ছাড়া মাত্র ৬ জন পরিবর্ত ফুটবলার ছিল, যাঁদের মধ্যে পাঁচজনই অ্যাকাডেমির। একমাত্র ইস্কো সিনিয়ার দলের সদস্য।

- Advertisement -

তারপরেও ১-০ গোলে ম্যাচ জিতে মাঠ ছাড়ল গতবারের চ্যাম্পিয়নরা। ৬৫ মিনিটে জয়সূচক গোলটি করেন কাসেমিরো। লিগে টানা চার ম্যাচ জিতল রিয়াল। এদিন বেঞ্জেমার বদলে স্ট্রাইকারে খেললেন মারিয়ানো দিয়াজ। বার দুয়েক সুযোগ তৈরি করেও অফসাইডের ফাঁদে পড়েন তিনি। পাশাপাশি কাসেমিরোও গোল পাওয়ার আগে দুবার হেডে গোল দেওয়ার চেষ্টা করেও ব্যর্থ হন। শেষপর্যন্ত টনি ক্রুসের ফ্রিকিকে মাথা ছুঁইয়ে গোল করেন। এদিন রাফায়েল ভারানে অধিনায়ক হলেও মাঠে নেতৃত্ব দেওয়ার ক্ষেত্রে বারবার কাসেমিরোই চোখ টেনেছেন। অবশ্য রিয়ালের জয়ের পেছনে বড় ভূমিকা গোলরক্ষক থিবো কুর্তোয়ার। সাইদি ইয়াঙ্কোর গোলের চেষ্টা যেভাবে আটকালেন, তাকে মরশুমের অন্যতম সেরা সেভ বলাই যায়।

মাঠে নামার আগে অবশ্য সুখবর ছিল রিয়ালের জন্য। লেভান্তের কাছে ২-০-তে হেরেছে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ। দিন তিনেক আগে একই প্রতিপক্ষের সঙ্গে ড্র করেছে লিগ শীর্ষে থাকা মাদ্রিদের অপর দলটি। ফলে অ্যাটলেটিকোর (২৩ ম্যাচে ৫৫ পয়েন্ট) সঙ্গে ব্যবধান কমানোর সুযোগ আসে রিয়ালের কাছে। ম্যাচ জিতে সেটাই করল তারা (২৪ ম্যাচে ৫২ পয়েন্ট)। ২৩ ম্যাচে ৪৭ পয়েন্ট নিয়ে তিনে বার্সা। লিগে নিজেদের পরের ম্যাচেই মুখোমুখি হচ্ছে অ্যাটলেটিকো ও রিয়াল। মাদ্রিদ ডার্বিতে জিতে ব্যবধান আরও কমানো বা বাড়ানোর সুযোগ রয়েছে দুপক্ষের কাছেই।