পিটিটিআই ও মাদ্রাসা শিক্ষকদের কর্মসূচির আগেই গ্রেপ্তার পুলিশের

404
ছবি: রাজীব মণ্ডল

কলকাতা: কলকাতার দুটি শিক্ষক সংগঠনের আন্দোলনের উপর পুলিশের দ্রুত হস্তক্ষেপ ও জোরজবরদস্তি করে গ্রেপ্তারের ঘটনাকে কেন্দ্র করে উত্তাল হয়ে উঠল কলকাতা। মঙ্গলবার, পূর্ব কর্মসূচি অনুযায়ী টেট ও পিটিটিআই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ ছাত্রছাত্রীদের চাকরির দাবিতে এ দিন বিকাশ ভবন অভিযানের ডাক দেওয়া হয়েছিল বিজেপি সমর্থিত শিক্ষক সংগঠনের পক্ষ থেকে।

আর সেই অনুসারে এদিন বিজেপির রাজ্য দপ্তর থেকে বিধান নগরের বিকাশ ভবনের উদ্দেশ্যে দুপুর সাড়ে বারোটা নাগাদ বের হয় মিছিল। মিছিল বিজেপির রাজ্য দপ্তর থেকে বের হতেই মাত্র ২০০ মিটার দূরেই মিছিলকে আটকে দেয় পুলিশ। শুধু তাই নয়, মাত্র পাঁচ মিনিটের মধ্যেই মিছিলকারীদের গ্রেপ্তার করে পুলিশ তাদের নিয়ে যায় লালবাজারে।

- Advertisement -

অপরদিকে এদিন মধ্য কলকাতার মেয়ো রোডে গান্ধি মূর্তির পাদদেশে বিভিন্ন দাবিতে অবস্থান বিক্ষোভের ডাক দিয়েছিল মাদ্রাসার শিক্ষক শিক্ষিকারা। আর তারা গান্ধী মূর্তির পাদদেশে হাজির হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচি শুরুর আগেই পুলিশ নির্বিচারে তাদের গ্রেপ্তার শুরু করে। শুধু তাই নয় গ্রেপ্তার করার সময় তাদের ওপর বল প্রয়োগ করা হয় বলেও অভিযোগ তোলেন আন্দোলনরত শিক্ষক শিক্ষিকারা।

উল্লেখ্য, পূর্ব নির্ধারিত কর্মসূচি অনুযায়ী বেলা সাড়ে বারোটা নাগাদ মধ্য কলকাতার মুরলী ধর সেন লেনের বিজেপি রাজ্য দপ্তর থেকে পিটিটিআই নেতা পিন্টু পাড়ুইয়ের নেতৃত্বের বিকাশ ভবনের উদ্দেশ্যে একটি প্রতিবাদ মিছিল বের হয়। আর সেই মিছিল মুরলীধর সেন থেকে চিত্তরঞ্জন এভিনিউতে পড়ার সঙ্গে পুলিশ মিছিলকারীদের আটকে দেয়। শুধু তাই নয় আন্দোলনকারীদের কোন কিছু বলার সুযোগ না দিয়েই তাদের গ্রেপ্তার শুরু করে দেয় পুলিশ।

এদিন আন্দোলনকারীরা অভিযোগ করেন, ২০১৪ সালে পিটিটিআই ও টেট পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার সত্ত্বেও দীর্ঘদিন ধরে  চাকরি পাচ্ছেনা। এ ব্যাপারে তারা বিভিন্ন জায়গায় দরবার করলেও কোন কাজের কাজ হয়নি। তাই বাধ্য হয়ে তাঁরা এই করোনা পরিস্থিতির মধ্যেও আন্দোলনে নামতে বাধ্য হয়েছেন। কিন্তু পুলিশ যেভাবে অতি সক্রিয় হয়ে তাদের মিছিল শুরুর মুখেই ভেস্তে দিয়ে গ্রেফতার করে তাদের ছত্রভঙ্গ করে দিল তাঁর তীব্র নিন্দা করেছেন তাঁরা।

অপরদিকে, দীর্ঘ নয় বছর ধরে বেতন পাচ্ছেন না সরকার অনুমোদিত কিন্তু সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত নয় এমন ২৩৫টি মাদ্রাসার শিক্ষক শিক্ষিকারা। শুধু তাই নয় সেখানকার ৪০ হাজার ছাত্র-ছাত্রীরা যেমন মিডডে মিল পাচ্ছে না, তেমনি সমস্ত সরকারি সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। এর প্রতিবাদে তাঁরা এদিন গান্ধি মূর্তির পাদদেশে অবস্থান বিক্ষোভের ডাক দিয়েছিল। আর সেই অবস্থান বিক্ষোভ কর্মসূচির জন্য তাঁরা সেনাবাহিনীর কাছ থেকে অনুমতি নিলেও কলকাতা পুলিশের পক্ষ থেকে সেই অবস্থান বিক্ষোভে বসার অনুমতি দেওয়া হয়নি। তাই অবস্থান বিক্ষোভের জন্য মাদ্রাসার শিক্ষক শিক্ষিকারা সেখানে হাজির হতেই পুলিশ  শিক্ষক শিক্ষিকাদের গ্রেপ্তার করতে শুরু করে দেয়। আর এর জেরে সেখানে ব্যাপক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি হয়। অভিযোগে প্রকাশ পুলিশ নাকি মাদ্রাসা শিক্ষক শিক্ষিকাদের গ্রেফতার করার সময় বলপ্রয়োগও করে। শুধু তাই নয় শিক্ষিকাদের পুরুষ পুলিশকর্মীরা শারীরিক নির্যাতন করে বলেও অভিযোগ তোলেন তাঁরা।