বেঙ্গালুরু, ১৫ এপ্রিলঃ ‘ডেটিং সাইট’-এর মাধ্যমে পরিচয়। তারপর হোয়াটসঅ্যাপে বন্ধুত্ব। ৩৪ বছর বয়সি ওই যুবক ভাবতেও পারেননি অনলাইনের এই বান্ধবী আসলে প্রতারণার জাল পেতে বসে আছেন। নিজের অজান্তে সেই ফাঁদে পা দিয়ে ৬০ লক্ষ টাকা খুইয়েছেন বেঙ্গালুরুর ওই যুবক। পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, গতবছরের ১৮ জুলাই ডেটিং  সাইটের মাধ্যমে ওই যুবকের সঙ্গে এক মহিলার পরিচয় হয়।  হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে তাঁদের বন্ধুত্ব আরও গাঢ় হয়। এরপর একদিন  হোয়াটসঅ্যাপে ওই মহিলা যুবককে জানান, তাঁর বাবা অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ভরতি রয়েছেন তাঁর চিকিৎসার জন্য ৩০ হাজার টাকা প্রয়োজন। এরপর ওই যুবক নিজের অ্যাকাউন্ট থেকে সেই মহিলার অ্যাকাউন্টে ৩০ হাজার টাকা দিয়া দেন।  এর কিছুদিন পর সেই মহিলা আবার তাঁর বাবার চিকিৎসার জন্য আরও টাকার প্রয়োজন বলে জানান। তাঁর কথামতো ২০১৭-র ১৫ ডিসেম্বর ওই যুবক নিজের অ্যাকাউন্ট থেকে রুপালি মজুমদার নামে একজনের  অ্যাকাউন্টে ১৯ লক্ষ টাকা ও ২৩  ডিসেম্বর কুষাণ মজুমদার নামে আর একজনের অ্যাকাউন্টে ৪০.৭ লক্ষ টাকা জমা দেন। এর কিছুদিন পরেই ওরই যুবকের সঙ্গে কথাবার্তা বলা বন্ধ করে দেন ওই মহিলা।  কথা না বলার কারণ প্রথম দিকে বুঝতে না পারলেও পরে ওই যুবক বুঝতে পারেন তিনি প্রতারিত হয়েছেন। ওই প্রতারককে শাস্তি দিতে সম্প্রতি সাইবার পুলিশের দ্বারস্থ হন বেঙ্গালুরুর এই যুবক।