সেরা হাইজাম্পার এখন টোটোচালক

চালসা : একসময় টানা ৪-৫ বছর ধরে অনূর্ধ্ব-১৮ বিভাগে জেলার সেরা হাইজাম্পার তাপস রায় এখন টোটোচালক। জাতীয় স্তরের হাইজাম্পে অংশগ্রহণ করেও পদক পেয়েছিলেন তিনি। কিন্তু সংসারের দায়ে সেই পারফরম্যান্স ধরে রাখতে পারেননি। ফলে সংসারের হাল ধরতে মাঠ ছেড়ে টোটো চালাচ্ছেন মেটেলি ব্লকের দক্ষিণ ধূপঝোরার ভগীরথপাড়ার যুবক তাপস রায় (২৫)। কিন্তু লকডাউনের জেরে এখন সেই কাজও বন্ধ।

২০১১ সালে রাঁচিতে ২৭তম জাতীয় জুনিয়ার অ্যাথলেটিক্সে হাইজাম্পে জলপাইগুড়ির হয়ে দ্বিতীয় হন তাপস। ২০১৫ সালে কলকাতার সল্টলেকে পশ্চিমবঙ্গ অ্যাথলেটিক্স অ্যাসোসিয়েনের হাইজাম্পে তৃতীয় হন। এছাড়া, ২০১২, ২০১৩, ২০১৪ সালে আন্তঃক্লাব মিটের জলপাইগুড়ি জেলায় অনূর্ধ্ব-১৮ বিভাগে হাইজাম্পে পরপর প্রথম স্থান অধিকার করেন তিনি। একমাত্র ছেলে তাপসকে নিয়ে কৃষক ঢুলু রায় ও সুমিত্রা রায়ে অনেক স্বপ্ন ছিল। কিন্তু এখন সেসব কিছুই নেই। তাপসের মা বলেন, অনেক কষ্ট করে ছেলেকে খেলার জন্য দূরে পাঠিয়েছি। অনেক মেডেলও পেয়েছিল। স্বপ্ন ছিল ছেলে বড় জায়গায় যাবে। কিন্তু সংসারের অভাবে কিছুই করতে পারল না। এমনকি মাধ্যমিকের পর ওর পড়াশোনাটাও চালাতে পারিনি। শুনেছি সরকার ভালো খেলাধুলো জানা ছেলেদের আলাদা করে চাকরি দেয়। ছেলের জন্য একটি চাকরির আবেদন জানান তিনি।

- Advertisement -

সেরা হাইজাম্পার এখন টোটোচালক| Uttarbanga Sambad | Latest Bengali News | বাংলা সংবাদ, বাংলা খবর | Live Breaking News North Bengal | COVID-19 Latest Report From Northbengal West Bengal India

এত সাফল্যের পরও সরকারিভাবে তাপস কোনও সুযোগসুবিধা পাননি। শংসাপত্রগুলিও নষ্ট হওয়ার পথে। প্রথমবার সিভিক ভলান্টিয়ারের পদে আবেদন করলেও বয়স না হওয়ায় চাকরি মেলেনি। দ্বিতীয়বার ফের আবেদন করেছেন। তাপস বলেন, বাবা-মা অসুস্থ। অনেক জায়গায় সরকারি চাকরির জন্য আবেদন করেছিলাম, হয়নি। সিভিক ভলান্টিয়ার হিসাবে যদি কাজ পাই তাহলে খুব ভালো হয়।