ভবানীপুর ভোট মামলার শুনানি শেষ! স্থগিত রায়দান

171
ছবি: সংগৃহীত

কলকাতা: ভবানীপুর ভোট মামলার শুনানি শেষ হল। আপাতত রায়দান স্থগিত রাখল ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ। তবে নির্বাচন কমিশনের দেওয়া হলফনামায় অসন্তুষ্ট হাইকোর্ট। মামলার শুনানিতে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি নির্বাচন কমিশনকে প্রশ্ন করেন, রাজ্যের মুখ্যসচিব নির্বাচন কমিশনকে যে চিঠি পাঠিয়েছিলেন তাতে সাংবিধানিক সংকটের কথা উল্লেখ করে ভবানীপুর কেন্দ্রে উপনির্বাচনের আর্জি জানানো হয়েছিল। কিন্তু সাংবিধানিক সংকট কোথায়? এই বক্তব্যে আপনারা কেন সম্মতি দিলেন? আর যদি ভোট করতে হয় তাহলে অন্যান্য কেন্দ্রগুলিতে কেন নয়?

এর উত্তরে নির্বাচন কমিশনের আইনজীবী সিদ্ধান্ত কুমার জানান, সাংবিধানিক সংকটের যে কথা উল্লেখ করা হয়েছে তার উত্তর মুখ্যসচিব দিতে পারবেন। নির্বাচন কমিশনের আইন অনুযায়ী ৬ মাসের মধ্যে ভোট করতে হয়। সেই কারণে এতে সম্মতি দেওয়া হয়েছে। ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি কমিশনের দেওয়া হলফনামা দেখে ক্ষুব্ধ হন। তিনি জানান, নির্বাচনের বিজ্ঞপ্তির ৬ ও ৭ নম্বর প্যারার ব্যাখ্যা কোথায়? কিন্তু নির্বাচন কমিশনের তরফে সদুত্তর দিতে পারেননি আইনজীবী। শুনানিতে ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি রাজেশ বিন্দল নির্বাচন কমিশনের আইনজীবীর উদ্দেশ্যে আরও প্রশ্ন করেন, একজন নির্বাচিত প্রতিনিধি আর একজনকে সুযোগ করে দেওয়ার জন্য ইচ্ছেমতো রেজিগনেশন দেবেন। আর নির্বাচন কমিশন জনগণের টাকায় সেই কেন্দ্রে ভোট করবে? কার টাকায় ওই কেন্দ্রে ভোট হবে? কিন্তু নির্বাচন কমিশনের আইনজীবী সিদ্ধান্ত কুমার জানান, ভোট করা কমিশনের দায়িত্ব। এর বেশি কিছু বলা সম্ভব নয়। এরপরই ভারপ্রাপ্ত প্রধান বিচারপতি জানান, মামলার শুনানি শেষ। রায়দান স্থগিত রাখা হচ্ছে। জনগণের টাকা খরচ করে কেন এই ধরনের নির্বাচন করা হবে সেই সংক্রান্ত বিষয় পরে আলাদা করে শুনানি হবে। প্রসঙ্গত, ভবানীপুর উপনির্বাচনে লড়াই করছেন মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। নির্বাচন কমিশনের ঘোষণা মতো আগামী ৩০ সেপ্টেম্বর ওই কেন্দ্রে ভোট হওয়ার কথা। একটি কেন্দ্রে নির্বাচনের বিরোধিতা করে কলকাতা হাইকোর্টে জনস্বার্থ মামলা করেছিলেন সায়ন বন্দ্যোপাধ্যায় নামে এক আইনজীবী।

- Advertisement -