নির্বাচনের ফল প্রকাশের রাতে ৫০টিরও বেশি দোকানে ভাঙচুর

183

ফাঁসিদেওয়া, ২ মেঃ নির্বাচনের ফল প্রকাশ হতেই রণক্ষেত্র পরিস্থিতি তৈরি হল ফাঁসিদেওয়া ব্লকের চটহাট বাজারে। অভিযোগ, এলাকায় বিজয় মিছিলের নামে ৫০টিরও বেশি দোকানে ভাঙচুর চালানো হয়েছে. ঘটনাকে কেন্দ্র করে অভিযোগের তীর তৃণমূলের দিকে। ফল প্রকাশের পর বিজয় মিছিল করার বিরুদ্ধে কঠোর ভাবে নিষেধাজ্ঞা জারি করা করেছিল নির্বাচন কমিশন। অথচ, সেই নিষেধাজ্ঞার তোয়াক্কা না করে, রাতের অন্ধকারে ডিজে বাজিয়ে, রীতিমতো তাণ্ডব চালিয়েছে দুষ্কৃতীরা, এমনই অভিযোগ উঠে আসছে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে তৃণমূল কংগ্রেসের কিছু কর্মীর উপর অভিযোগ উঠছে।

ইতিমধ্যেই ঘটনাস্থলে ফাঁসিদেওয়া থানা থেকে বিশাল পুলিশবাহিনী পৌঁছায়। পরে ডিএসপি (গ্রামীণ) অচিন্ত্য গুপ্ত, নকশালবাড়ির সার্কেল ইন্সপেক্টর সুদীপ্ত সরকার সহ অন্যান্য পুলিশ আধিকারিক পৌঁছান। বিষয়টিকে কেন্দ্র করে তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব নিন্দা করেছে। এমন ঘটনা কেউ করে থাকলে, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক পদক্ষেপ গ্রহণের পাশাপাশি, প্রশাসনের কাছে আইনি ব্যবস্থা নেওয়ার আর্জি জানানো হয়েছে।

- Advertisement -

ফাঁসিদেওয়া কেন্দ্রে জয়ী হয়েছেন বিজেপি প্রার্থী দুর্গা মুর্মু। তবে, গোটা রাজ্যে তৃণমূল কংগ্রেসের জয়ের আনন্দে মেতে উঠে সারাদিন বিজয় মিছিল করা হয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে অভিযোগ বিজেপির। আর রাতের অন্ধকারে চটহাট বাজারে মিছিল করার নামে কিছু তৃণমূল কংগ্রেসের দুষ্কৃতী ভাঙচুর করা হয়েছে বলে অভিযোগ করেন দেবাশীষ দাস নামে এক ব্যবসায়ী।

তাঁর আরও অভিযোগ, মিছিল থেকে বাড়িতে পাথর বৃষ্টিও করা হয়েছে। নির্বাচন কমিশনের তরফে বিজয় মিছিল নিষিদ্ধ করা হলেও, কিভাবে তৃণমূল আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এই মিছিল করল তানিয়েও প্রশ্ন তোলেন তিনি। অন্যদিকে, আপন ঘোষ নামে এক পানের দোকানদার বলেন, তার দোকানের সামগ্রী থেকে শুরু করে ঠাণ্ডা পানীয়ের কাঁচের বোতল ভেঙে ফেলা হয়েছে। ঘটনার তীব্র নিন্দা করেন তিনি। পাশাপাশি, সরকারের কাছে ক্ষতিপূরণ এবং অভিযুক্তদের কঠোর আইনী পদক্ষেপ দাবি জানিয়েছেন তিনি।

তৃণমূল যুব কংগ্রেসের ফাঁসিদেওয়া সাংগঠনিক ১ নম্বর ব্লক সভাপতি আখতার আলি বলেন, রাতের অন্ধকারে এমন ঘটনা কখনই কাম্য নয়। আগে চটহাটে এ ধরনের ঘটনা কখনও ঘটেনি। আমাদের কোনও কর্মী এই ঘটনায় জড়িত থাকলে, প্রশাসন ব্যবস্থা গ্রহণ করবে। আমরা কখনওই চাই না, হিংসার পরিবেশ তৈরি হোক। পাশাপাশি, দলে থেকে যারা এভাবে দলের এবং সমাজের ক্ষতি করছে তাঁদের বিরুদ্ধে আমরা তীব্র ধিক্কার জানাই। আগামীকাল বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা হবে।

ফাঁসিদেওয়া পঞ্চায়েত সমিতির সদ্য প্রাক্তন সভাপতি মহম্মদ বসিরউদ্দিন বলেন, ঘটনায় জড়িতদের চিহ্নিত করার কাজ শুরু হয়েছে। আমাদের দলের তরফে কোনওরকম বিজয় মিছিল করা হয়নি। আমরা নির্বাচন কমিশনের নির্দেশনা মেনে চলছি। প্রশাসনের কাছে উপযুক্ত পদক্ষেপ গ্রহণের আর্জি জানিয়েছি। তবে, এই প্রসঙ্গে পুলিশের কোনও আধিকারিক মন্তব্য করতে চাননি।