কোভ্যাক্সিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু

286

নিউজ ডেস্ক: কোভ্যাক্সিনের তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল শুরু ভারতে। সম্প্রতি দেশের ২২ টি জায়গার মোট ২৬,০০০ জন স্বেচ্ছাসেবককে নিয়ে এই টিকাকরণ ট্রায়াল প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে। সোমবার এমনটাই জানালেন ভারত বায়োটেকের চেয়ারম্যান এবং ম্যানেজিং ডিরেক্টর কৃ্ষ্ণা এল্লা।

ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর) এবং ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ ভাইরোলজির (এনআইভি) সঙ্গে যৌথভাবে সম্ভাব্য টিকা তৈরি করেছে ভারত বায়োটেক। একটি বিবৃতিতে ভারত বায়োটেকের তরফে বলা হয়, ‘তৃতীয় পর্যায়ের ট্রায়ালে ভারতে ২৬,০০০ জন স্বেচ্ছাসেবক থাকবেন। ভারতে কোভিড ১৯-এর টিকার জন্য যে ট্রায়াল চালানো হয়েছে, তার মধ্যে এটাই সর্ববৃহৎ ক্লিনিক্যাল ট্রায়াল। কোভিড ১৯-র টিকার প্রথম তৃতীয় পর্যায়ের কার্যকারিতার পরীক্ষা এবং ভারতে এখনও পর্যন্ত সবথেকে বড় তৃতীয় পর্যায়ের কার্যকারিতার পরীক্ষা এটি।’

- Advertisement -

ভারত বায়োটেকের তরফে আরও জানানো হয়, মোট ২৮ দিনের ব্যবধানে স্বেচ্ছাসেবকদের পেশিতে দুটি ইনজেকশন দেওয়া হবে। এলোমেলোভাবে স্বেচ্ছাসেবকদের বেছে নিয়ে কোভ্যাক্সিন দেওয়া হবে। এমনভাবে বণ্টন করা হবে, যাতে স্বেচ্ছাসেবক, তদন্তকারী আধিকারিক এবং সংশ্লিষ্ট জানবে না যে কে কোন দলে আছে। ১,০০০ ‘সাবজেক্ট’-এর উপর কোভ্যাক্সিনের প্রথম এবং দ্বিতীয় পর্যায়ের ট্রায়াল চালানো হয়েছে। তাতে সুরক্ষা এবং অনাক্রম্যতা সংক্রান্ত যে তথ্য মিলেছে, তা আশাব্যঞ্জক বলে দাবি করেছে ভারত বায়োটেক।

উল্লেখ্য, ক্লিনিকাল ট্রায়ালস রেজিস্ট্রি অফ ইন্ডিয়ার অধীনে অতি সম্প্রতি নথিভুক্ত হয়েছে এই ট্রায়াল। তাতে ছাড়পত্র দিয়েছে ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়ার (ডিসিজিআই)। অন্যদিকে, এক আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম সূত্রে খবর, নাকে স্প্রে করে দেওয়ার মতো করোনা টিকাও তৈরি করা হচ্ছে। যা আগামী বছরের মধ্যে তৈরি হয়ে যেতে পারে।