থমকে ভারতমালা প্রকল্পের কাজ খোঁজ, নিয়ে দেখার আশ্বাস সুকান্তের

935

সুবীর মহন্ত, বালুরঘাটঃ দুই বছর ধরে দক্ষিণ দিনাজপুর জেলায় থমকে রয়েছে ভারতমালা প্রকল্পের কাজ। মালদা, উত্তর দিনাজপুর ও দক্ষিণ দিনাজপুরের মধ্যে উন্নতমানের বিকল্প সড়ক যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ার এই  প্রকল্পের কাজ কবে চালু হবে, তা নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। আপাতত জেলা প্রশাসনিক দপ্তরের লাল ফিতের ফাঁসেই এই প্রকল্পের অগ্রগতি আটকে রয়েছে। কাজটি য়াতে দ্রুত শুরু করা য়ায়, তার জন্য উদ্যোগ নেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন বালুরঘাটের সাংসদ ড. সুকান্ত মজুমদার।

কেন্দ্রীয় সরকারের জাতীয় সড়ক দপ্তরের তরফ থেকে দেশ জুড়ে ভারতমালা প্রকল্প নামে সড়ক নির্মাণের প্রকল্প নেওয়া হয়েছিল। উত্তরবঙ্গের জন্য বরাদ্দ করা হয়েছিল দু’টি প্রকল্প। এরমধ্যে উত্তরবঙ্গের একেবারে উত্তরের জেলাগুলিকে নিয়ে একটি এবং মালদা, উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিণ দিনাজপুর এই তিন জেলাকে নিয়ে অপর একটি প্রকল্পের পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছিল। ২০১৭ সালে কেন্দ্র সরকারের তরফ থেকে ওই প্রকল্পের চিঠিগুলিও  এসে  পৌঁছেছিল জেলাগুলিতে। রাজ্য সরকারের সহযোগিতায় ওই প্রকল্পগুলি বাস্তবায়নের নির্দেশও দেওয়া হয়েছিল। প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার নির্বাচিত জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে ২০১৮ সালে একটি বৈঠকও করা হয়েছিল। কিন্তু তারপর থেকেই প্রকল্পের কাজটি আটকে রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

- Advertisement -

সরকারি ওই নির্দেশিকা অনুযায়ী জানা গিয়েছে, ভারতমালা প্রকল্পে মালদার সীমান্ত এলাকা মহদিপুর থেকে সুস্থানি মোড় পর‌্যন্ত ১৩ কিলোমিটার রাস্তা,  গাজোল থেকে হিলি পর্যন্ত ৯৮ কিলোমিটার রাস্তা এবং বুনিয়াদপুর থেকে উত্তর দিনাজপুর পর‌্যন্ত ৬৭.৫ কিলোমিটার রাস্তা নির্মাণের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছিল। বর্তমান ৫১২ নম্বর জাতীয় সড়কের পাশাপাশি আরও একটি উন্নতমানের সড়ক গড়া হবে বলে জানা গিয়েছে। সেক্ষেত্রে রেললাইনের কাছাকাছি দিয়ে এই সড়ক হতে পারে বলে সূত্রের খবর। যদিও এ নিয়ে ডিটেইলস প্রোজেক্ট রিপোর্ট তৈরির কাজ পিছিয়ে যাওয়ার কারণে এই বিষয়ে স্পষ্ট কিছু জানা য়ায়নি।

প্রকল্পের কাজ আটকে থাকার কারণ জানতে চেষ্টা করবেন বলে জানান বালুরঘাটের সাংসদ ড.সুকান্ত মজুমদার। তিনি বলেন, ভারতমালার মতো প্রকল্পের কাজ কেন আটকে রয়েছে, তার খোঁজ নেব। প্রযোজনে কেন্দ্রীয় সরকারের হস্তক্ষেপ দাবি করব। জেলা প্রশাসনের বিশেষ জমি অধিগ্রহণ আধিকারিক দেবজিত্ বোস বলেন, ভারতমালা প্রকল্পের বিষয়ে প্রথমদিকে কিছু নির্দেশিকা ছিল। সেগুলি পূরণ করা হয়েছে। কিন্তু পরবর্তীতে নতুন কোনো গাইডলাইন না থাকায় কাজটি শুরু হয়নি।